ই-কমার্স নিয়ে ২০০০ সাল থেকে আমার আগ্রহ

আমি পড়তে ভালবাসি, কাজ করতে ভালবাসি। সেভাবে প্রতিভাবান মনে হয় আমি নই- মাঝারী মানের প্রতিভা আমার। বলার মত একটাই প্রতিভা আছে- স্মরণশক্তি বা মনে রাখার ক্ষমতা। মানুষের নাম মনে থাকে, তারা কি করে, তাদের সঙ্গে কখন কি কথা হয়েছিল এ ধরনের অনেক কিছুই আমার অনেক বছর ধরে মনে থেকে। এখন মনে হয় যে এর সঙ্গে প্রতিভার যা সম্পর্ক তার থেকে অনেক বেশি সম্পর্ক মানুষকে মনে রাখার ব্যপারে আমার আগ্রহ ও চেষ্টার।
ই-কমার্স নিয়ে ২০০০ সাল থেকে আমার আগ্রহ, বিভিন্ন আইটি ম্যগাজিন ও ব্লগে লিখেছি তখন থেকে। মোটামোটা কিছু বই পড়েছি। ইন্টারনেটে ২০০২ সাল থেকে ই-কমার্স নিয়ে অনেক কিছু পড়েছি। অনেক কিছু মনে আছে আবার অনেক কিছু ভুলে গেছি। ই-ক্যাব নিয়ে আমরা যখন কাজ শুরু করি তখন প্রথম দিন থেকেই আমি চেষ্টা করেছি যতই ব্যস্ত থাকি না কেন ই-কমার্স নিয়ে প্রতিদিন পড়তে। প্রথম থেকে এও উপলব্ধি করি শুধু নিজে জানলে হবে না বরং ই-ক্যাব এর মেম্বারদের জানা দরকার আরও বেশি। বিশেষ করে যারা নতুন উদ্যোক্তা এবং ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা তাদের জানতে হবে সবচেয়ে বেশি।
৩ মাস পেছন ফিরে তাকালে দেখা যায় যে বাংলা ভাষায় তেমন কোন কন্টেন্ট ছিলনা। এমনকি বাংলাদেশের ই-কমার্স নিয়ে ইংরেজিতেও ইন্টারনেটে তেমন কন্টেন্ট ছিলনা। আমাদের ফেইসবুক গ্রুপ এবং ই-ক্যাব ব্লগের মাধ্যমে সেই অভাব দূর করা গেছে। আর আফজাল ভাই ও তন্ময় ভাই এর চেষ্টায় স্কাইপের মাধ্যমে অনেক নতুন উদ্যোক্তাকে অনেক বেশি তথ্য দেয়া গেছে। প্রায় প্রতিদিনই স্কাইপে নতুন কেউ না কেউ আসেন। এর পরের চেষ্টা থাকছে ঢাকার বিভিন্ন প্রান্তে (প্রাথমিক পর্যায়ে উত্তরা, বনানী, ধানমন্ডি, বেইলি রোড ও লক্ষ্মীবাজার) ই-ক্যাব সদস্য ও ই-কমার্স নিয়ে যারা আগ্রহী তাদের সঙ্গে সরাসরি উপস্থিত থেকে আড্ডা দেয়া। দরকার হলে ১-২ জন দিয়ে শুরু করতে চাই। এই গ্রুপ তো মাত্র সামান্য কয়েকজন দিয়েই শুরু হয়েছিল।
ঢাকার বাইরে এ মুহূর্তে খুব একটা যেতে পারবো না তবে আজ হোক কাল হোক যেতে চাই।
এছাড়া আরও চাই বিভিন্ন বিষয়ের উপর প্রশ্ন সবার থেকে সংগ্রহ করে সে বিষয়ের উপর যারা এক্সপার্ট তাদের ভিডিও সাক্ষাৎকার নেবার ও তারপর ইউটিউব ও ফেইসবুকে দিয়ে দেব। ই-কমার্স সম্পর্কে তথ্য পাবার ও দেবার সব উপায় নিয়ে কাজ করতে চাই। এবং তা করতে চাই কোন রকম মার্কেটিং এর ধান্দা ছাড়া।
যেসব মাধ্যমে তথ্য দেবার চেষ্টা করছি সেগুলতে যদি কেউ স্পন্সরশীপ বা অন্য কোন ভাবে আর্থিক সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেন তাহলে অবশ্যই খুশী হবো কিন্তু যারা সাহায্য করবেন তারা যদি আমার মত মার্কেটিং এর চিন্তা না করে এগিয়ে আসেন তাহলে ই-কমার্স সেক্টর অনেক দ্রুত এগিয়ে যাবে। সেসব (স্পন্সর) কোম্পানির সঙ্গে ই-ক্যাব মেম্বারদের তখন আমার মতই বন্ধু বা ভাইয়ের মত আন্তরিক সম্পর্ক হবে আস্তে আস্তে- এমন আশা রাখি।
স্পন্সরশীপের জন্য এই পোস্ট দেয়া নয়। আমি যা চাই তাহল এই যে আমরা কয়েকজন বিশেষ করে আমি জান প্রান দিয়ে আপনাদের সবার জন্য তথ্য সংগ্রহ ও তা বিনামুল্যে ছড়িয়ে দেবার চেষ্টা করছি তা তখনই সার্থক হবে যখন আপনারা মন দিয়ে পড়বেন, জানবেন এবং উপকার পাবেন।
তথ্যের পরের ধাপ হল শিক্ষা এবং প্রশিক্ষণ। সেমিনার, ওয়ার্কশপ, কোর্স, অনলাইন কোর্স ও ওয়েবিনিয়ার- এসব নিয়ে কাজ করা শুরু করার চেষ্টা ভালমতোই শুরু করে দিয়েছি এবং দেশের অবস্থা স্বাভাবিক হলে তার ফলও দেখতে পাবেন। সেখানেও একই চিন্তা আমার- কেউ যাতে হুজুগে না পড়ে, কেউ যাতে ভুল না শেখে। বাংলাদেশের মত দেশে যেখানে একদিনের ট্রেনিং শেষে উদ্যোক্তা হবার স্বপ্ন দেখেন অনেকে সেখানে এ ধরণের কষ্টসাধ্য দীর্ঘ মেয়াদী বা লং টার্ম কর্ম সূচি নিয়ে কতজনকে খুশী করা যাবে তা আমি আসলেই জানিনা। তবে এটুকু বুঝি যে জীবনে কোন শর্ট কাট নেই। ই-কমার্সেও কোন শর্ট কাট নেই।
তাই যারা আমার মতই দিনের পর দিন পড়ে, জেনে এবং কাজ করে একটু একটু করে আগাতে চান তাদের উদ্দেশ্যে আমার স্যালুট রইলো কারণ আমরা সত্যিই প্রবল স্রোতের বিপরীতে চলার চেষ্টা করছি।

Razib Ahmed
30 January 2015

Spread the love

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *