উইন-উইন (win-win) বা দু পক্ষের জন্যই লাভজনক হবে এমন কিছু করা বাংলাদেশে বেশ কঠিন নানা কারণে। একটা বড় কারণ হল বোধহয় আমরা ধরেই নেই যে আমি নিজে খেটে মরছি আর আরেকজন কিছুই করছে না। অনেক ক্ষেত্রে আবার সত্যি সত্যি এমনটা ঘটে। তাই বাংলাদেশে সমবায় মানসিকতা শেষ পর্যন্ত আর বাস্তবে সম্ভব হয়ে ওঠেনা। অথচ আমাদের দেশে কোন কিছুরই অভাব ছিলনা- নদীর পানি, উর্বর ও চাষযোগ্য ভুমি, মাছ-গাছ, মানুষ- কিসের অভাব আমাদের? অভাব শুধু মনে হয় একটাই মিলে মিশে কাজ করার মানসিকতার অনুপস্থিতি।
সততা, আস্থা, বিশ্বাস- এগুলো বইয়ের পাতাতেই বেশি শোভা পায়। ফলে খুব সাধারণ বা সামান্য সমস্যায় আমরা অনেক ভুগে থাকি। আমাদের জীবনের একটা বড় অংশই ব্যয় হয় ঝামেলা আর ভেজালে। অনেক পরিবারেই সম্পত্তি নিয়ে বিবাদ মামলা হামলা এমনকি খুন খারাবীতে পর্যন্ত গড়ায়। আদালতের মামলার একটা বড় অংশ জমি নিয়ে। অনেক মামলা বছরের পর বছর গড়ায়।
এই অবস্থার পরিবর্তনের উপায় কি? উপায় একটাই, সততা, আস্থা, বিশ্বাস, পরস্পরকে আন্তরিক ভাবে সাহায্য করা- এই ধারনা গুলোকে বইয়ের পাতা থেকে তুলে এনে নিজেদের জীবনে স্থাপন করা। এ সমাজে সততাকে বোকামি বলে ধরা হয়, বিনয়কে দুর্বলতা বলে মনে করা হয়। হয়তো একদিনে সবাই বদলাবে না। হয়তো অনেক সময় লাগবে। তবে যতদিন আমরা না বদলাবো ততদিন উইন-উইন এর স্বাদ আমরা পাবো না।

উইন-উইন