উৎসাহ: একটি সত্য ঘটনা

 

উনবিংশ শতাব্দীর বিখ্যাত কবি এবং শিল্পী দান্তে গ্যাব্রিয়েল রসেটির কাছে একদিন একজন বৃদ্ধ লোক আসলেন। বৃদ্ধ লোকটি কিছু পেইন্টিং বা চিত্রকর্ম সাথে নিয়ে এসেছিলেন রসেটিকে দেখানোর ও এগুলো সম্পর্কে তাঁর মতামত নিতে। রসেটি বেশ মনোযোগ দিয়ে দেখতে থাকলেন। তবে প্রথম দুএকটি দেখার পর তিনি বুঝলেন চিত্রকর্ম গুলো মূল্যহীন এবং এটি যিনি একেছেন তার ভাল শিল্পী হবার সামান্যতম সম্ভাবনা নেই। তবে তিনি একজন দয়ালু মানুষ ছিলেন এবং বৃদ্ধকে যতটা সম্ভব নরম ভাবে জানালেন যে ছবিগুলো তেমন ভাল নয় এবং যিনি এটি একেছেন তার তেমন বড় শিল্পী হবার সম্ভাবনা নেই। একথা বলাতে তাঁর খারাপ লাগলো কিন্তু তিনি মিথ্যা বলতে চান নি।

বৃদ্ধের কিছুটা মন খারাপ হলেও দেখে মনে হল যে তিনি এ ধরনের মতামত শুনবেন তা আগে থেকেই উপলব্ধি করতে পেরেছিলেন। তিনি রসেটির মুল্যবান সময় নষ্ট করার ক্ষমা চাইলেন তবে আরও কয়েকটি ছবি বের করে জানালেন যে সেগুলো একজন তরুন চিত্রকলার শিক্ষার্থী কর্তৃক অংকিত হয়েছে এবং সে ছবি গুলো সম্পর্কে রসেটির মত জানতে চাইলেন।

রসেটি দ্বিতীয় সেটের ছবি গুলো দেখতে শুরু করার সাথে সাথেই খুব মজে গেলেন এবং তরুন চিত্রকরের প্রতিভা নিয়ে তাঁর মনে কোন সন্দেহ রইলো না। তিনি বললেন, “ওহ! এগুলো খুবই ভাল পেইন্টিং। এই তরুন শিক্ষার্থীর দারুণ প্রতিভা রয়েছে। ক্যারিয়ারে অগ্রসর হবার জন্য তাকে সকল ধরনের উৎসাহ ও সহযোগিতা দেয়া উচিৎ। যদি এই তরুন লেগে থাকে তবে তার অত্যন্ত উজ্জল ও সফল ভবিষ্যৎ অপেক্ষা করছে।“ রসেটি দেখল যে এই কথা শুনে বৃদ্ধের মধ্যে গভীর প্রতিক্রিয়া হয়েছে। তাই তিনি বৃদ্ধকে জিজ্ঞেস করলেন, “তরুন শিল্পীটি কে, আপনার পুত্র?”

বিষণ্ণ সুরে বৃদ্ধটি উত্তর দিল, “না, এগুলো আমি ৪০ বছর আগে তরুন বয়সে একেছি। তখন যদি আপনার মত কারো থেকে এ ধরনের অনুপ্রেরণা পেতাম তাহলে কি ভালই না হত। আমি হতাশ হয়ে পড়ে চেষ্টা করা ছেড়ে দেই।“

লেখাটি নেয়া হয়েছেঃ From Brian Cavanaugh’s The Sower’s Seeds

আমরা এমন এক সমাজে বাস করি যেখানে শর্টকাটের জয়জয়কার। সৎ ভাবে পরিশ্রম করাকে বোকামি ও মূর্খতা বলে মনে করা হয়। ছাত্র জীবনে দেখতাম যে অনেকে খুব গর্ব করে বলার চেষ্টা করতো তারা একদম পড়েই না। পরোক্ষ ভাবে বলার চেষ্টা করতো যে তাদের ব্রেইন খুব ভালো আর যারা বেশী পড়ে তাদের ভোতা ব্রেইন। আমার মত যারা একটু পড়ুয়া ধাচের ছিল তাদের অনেক সময় মন খারাপ হয়ে যেত অন্যদের উপহাসের পাত্র হয়ে কারণ আমরা যে বেশী পড়ি বা লুকিয়ে পড়তে পারিনা। বেশী পড়াকে নেতিবাচক অর্থে বোধহয় এখনকার ছাত্ররাও দেখে। যাইহোক মূল কথা হল মন দিয়ে লেগে থাকলে যে কোন কাজে সাফল্য আসবে।

Spread the love

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *