পোস্ট টা লিখেছিলাম ২০১৪ সালের সেপ্টেম্বর মাসে। তখন ই-ক্যাব নিয়ে প্রকাশ্যে আমরা নামিনি। অবশ্য একটু একটু করে অনেক কিছু গুছাচ্ছিলাম। এখন ই-কমার্স অ্যাসোসিয়েশান অব বাংলাদেশ (ই-ক্যাব) অনেক এগিয়েছে। পোস্ট টা আমি আবার দিচ্ছি আমার সেই সব তরুন বন্ধুদের জন্য যারা জীবনে হতাশ। গ্রুপে পোস্ট দিয়ে, ব্লগে আমরা লিখে আর স্কাইপে আড্ডা ও বাস্তব জীবনে আড্ডা দিয়ে কিছু করার চেষ্টা করেছি।

সব সময় নতুন কিছু করতে ভাল লাগে এবং বলা যায় ৯৫% সময়ই আমি ব্যর্থ হয়েছি। ১৯৯৬ সালে আমরা কয়েক জন বন্ধু মিলে পরিবেশ নিয়ে একটা সংগঠনের চেষ্টা করি কিন্তু তা নিয়ে সফল হইনি। ইন্টারনেট প্রথম ব্যবহার করি ১৯৯৭ সালে ব্রিটিশ কাউন্সিলে। তারপর এক ধরনের নেশা ধরে যায় কম্পিউটার ও ইন্টারনেটের প্রতি। ১৯৯৯ সালে নিজের কম্পিউটার ছিলনা। কিন্তু কম্পিউটার টুমরো ম্যাগাজিনে সাহস করে আইসিটি বিষয়ে লেখা শুরু করি এবং ১৫ বছর হয়ে গেছে আইটি সাংবাদিকতার।

২০০১ সালে সিডি ম্যাগাজিন করার চেষ্টা করি কম্পিউটার বিশ্ব ম্যাগাজিনের সঙ্গে মিলে এবং তা একটুও চলেনি।

বিডিনিউজ বা বাংলা নিউজ ২৪ এর আগে ২০০২ সালে চেষ্টা করেছিলাম বাংলাদেশেরকথা ডট কম নামে একটা নিউজ ওয়েবসাইট বানাতে। দারুণভাবে ব্যর্থ হই। একই ধরনের কাজ করে আবার ব্যর্থ হই ২০০৪ সালে।

২০০৪ সালে কয়েকজন মিলে একটা ই-কমার্স ওয়েবসাইট বানিয়েছিলাম কিন্তু লাভ হয়নি।

২০০৩ সালে প্রথম ব্লগ লিখি কিন্তু সেটা হারিয়ে গেছে। তবে ২০০৫ সালের জুলাই মাসে যে ব্লগ শুরু করেছিলাম (ইংরেজিতে) তা এখনো আছে। ২০০৬ সালে আমেরিকান একটা ব্লগ নেটওয়ার্কে যোগ দেই এবং সেরা ব্লগারের পুরষ্কার পাই। ২০১০ সালে আমার ব্লগ গুগুল নিউজে ঢুকতে সমর্থ হয়েছিল কিন্তু এরপর প্রচণ্ড অসুস্থ হয়ে পড়ি। ২০১১ সালের বিশ্বকাপের সময় বাংলা ভাষায় বাংলাদেশের জাতীয় দলের উপর একটা ওয়েবসাইট বানানোতে নেতৃত্ব দেই এবং তাও চলেনি।

কোন কাজই আমি অবশ্য একা করিনি। আমার মতই কিছু কাজ পাগল লোকের সঙ্গে দেখা হয়েছিল জীবনে যাদের প্রায় সবাই আমার ছাত্র ছিল।

এতবার এত কিছুতে ব্যর্থ হয়েও আমার মন একটুও দমে যায় নি। এখনো স্বপ্ন দেখি নতুন কিছু করার। হয়তো একদিন অনেক বড় সাফল্য আসবে জীবনে।

তবুও স্বপ্ন দেখি