২১ মাস আগে ই-ক্যাবের প্রথম দিন গুলোতে আমার সাধারণ বেশ ভুষাকে আমার দুর্বলতা হিসেবে অনেকেই গন্য করতেন। সব পোস্ট বাংলাতে, কমেন্ট বাংলাতে, কথা বার্তা একদম সাধারণ। চলাফেরা ধানমন্ডি লেকের ধারে সব চাল চুলো হীন রাস্তার পোলাপানদের সঙ্গে (প্রথম দিকে এ নিয়ে অনেক উপহাস করা হত আমাকে নিয়ে)। মানে আমার মধ্যে কোন রকম কর্পোরেট ভাব বা স্মার্টনেস ছিল না বা এখনো নেই। ২১ মাসে আমি একটুও বদলাই নি বা বদলানোর চেষ্টা করিনি। কারন আমি জানতাম এগুলো আমার দুর্বলতা নয় বরং শক্তি। হ্যা, সাধারণ মানুষ হতে পারা খুব বড় শক্তি আমার।
এমন মনে করার কারন হল সাধারণ মানুষ হবার ফলে কিছু সুবিধা আছে যেগুলোকে আমি দারুন ভাবে কাজে লাগাতে পেরেছি ই-ক্যাবের জন্য। ২১ মাসে অন্তত ২,১০০ মানুষের সঙ্গে কথা বলেছি ই-কমার্স নিয়ে। এর ফলে ই-কমার্স নিয়ে সামান্যতম আগ্রহি যে কেউ ই-ক্যাব এর কথা জানতে পেরেছেন আমার মাধ্যমে। তাদের অনেকে ঢাকার, অনেকে বিভিন্ন জেলার এবং অনেকে বিভিন্ন দেশে আছেন। তাদের ৯৯% আমার মতই সাধারণ মানুষ। তাদের সঙ্গে দিন রাত কথা বলেছি এবং এতে করে আমার দাম কমে না গিয়ে অনেক বেড়েছে।
এর ফলে আমার কখনোই ই-ক্যাবের জন্য ফেইসবুকে মার্কেটিং এর জন্য কোন টাকা খরচ করতে হয়নি। বরং ই-ক্যাবের প্রতিটি অনুষ্ঠানে যখন ডাক দিয়েছি ঢাকার বিভিন্ন প্রান্ত থেকে অনেকে নিজের পকেটের পয়সা খরচ করে চাঁদা দিয়ে অংশ নিয়েছে গত ২১ মাস ধরে।
তরুণরা ই-ক্যাবে নানাভাবে অবদান রেখেছে এখনো রেখেছে। শোভন ভাই ১৪০ টির মত ব্লগ আর্টিকেল লিখেছেন, আফজাল ভাই রাতের পর রাত স্কাইপে ই-কমার্স নিয়ে পরামর্শ দিয়েছেন। মহান ভাই ও খায়ের ভাই গত ১ বছর ধরে দিন রাত আমার সঙ্গে কাজ করে গেছেন। এমনি আরও অনেকে আছেন এবং তারা আমার মত সাধারণ মানুষ। এ নিয়েও অনেকে অনেক ফালতু কথা বলেছে কিন্তু ঐ যে বললাম এই ধরনের সাধারণ মানুষ হয়ে সাধারণ মানুষদের সামনে নিয়ে আসা কোন মতেই আমার দুর্বলতা নয় বরং আমার শক্তি।
আর এই শক্তির দারুন প্রকাশ ঘটেছে ই-ক্যাব ফেইসবুক গ্রুপে, ব্লগে এবং আমাদের অনুষ্ঠান গুলোতে- আমরা সবাই রাজা। সামনে ট্রেনিং, রিসার্চ, পাবলিকেশন এগুলোতেও এই সাধারণ মানুষদের বিশেষ করে তরুণদের অংশগ্রহণ অব্যাহত থাকবে বলে আশা করি।
তাই যারাই এই পোস্ট পড়ছেন তাদের প্রতি পরামর্স রইলো নিজের শক্তিকে দুর্বলতা বলে মনে করবেন না। বরং সেই শক্তিকে কিভাবে কাজে লাগানো যায় তা নিয়ে ভাবুন এবং চেষ্টা করুন।

দুর্বলতা বনাম শক্তি