সার্চ ইংলিশ গ্রুপে ভাল পোস্টঃ ৯ অক্টোবর ২০১৬

সার্চ ইংলিশ গ্রুপে ভাল পোস্ট উৎসাহিত করার জন্য কমেন্ট করার উদ্যোগের এটি একটি টেস্ট। এই পরীক্ষা আমি আমার ব্যক্তিগত ওয়েবসাইটে করছি আজকের জন্য। তবে কাল বা পরশু থেকে তা সার্চ ইংলিশ ওয়েবসাইটে হবে। আইডিয়া খুবই সাধারণ। নিচের লিঙ্ক গুলোতে ক্লিক

সার্চ ইংলিশঃ ৫০,০০০ মেম্বার

আর কয়েক ঘণ্টার মধ্যে সার্চ ইংলিশ গ্রুপের সদস্য সংখ্যা ৫০,০০০ হয়ে যাবে। আমরা আর ছোট গ্রুপ নই। বরং বড় গ্রুপ হয়ে যাচ্ছি। যে পরিমান পোস্ট আর কমেন্ট আসে তাতে করে বাংলাদেশের অন্যতম একটিভ গ্রুপে পরিণত হয়েছি আমরা। ৯৯ দিন আগে

একজন ছাত্র যখন একদিনে ১ ঘণ্টা ইংরেজিতে কথা বলতে পারবে

আজকে শিক্ষক দিবস ছিল। ঘুম থেকে উঠতেই দেখি ফারহানা আশা আপুর পোস্ট, বিশ্বজিৎ অধিকারি ভাইয়ের পোস্ট। এরপর একের পর এক পোস্ট আসে এই গ্রুপে। ধন্যবাদ সবাইকে। আমি আসলে শিক্ষক নই। ক্যারিয়ার শুরু করেছিলাম শিক্ষকতা দিয়ে। ইংরেজির শিক্ষক ছিলাম। পড়াতে গিয়ে

ভক্ত চাই না কর্মী চাই

ফেইসবুকে এখন প্রতিদিন আমাকে ট্যাগ করে বা আমার নাম উল্লেখ করে প্রচুর পোস্ট আসে। ই-ক্যাব আর সার্চ ইংলিশ গ্রুপে অনেক পোস্ট আসে এভাবে। কেউ কেউ তাদের প্রফাইলেও আমাকে নিয়ে লেখেন। সপ্তাহে ২০-৩০ টি পোস্ট দেখতে পাই। অনেকে আমাকে মেন্টর হিসেবে

অন্যের ফালতু কথাকে পাত্তা দেবেন না

ফেইসবুকে ই-ক্যাব নিয়ে আমার বিরুদ্ধে ২০১৫ সালে অন্তত ২০০ পোস্ট এসেছিল। একদিন এক সঙ্গে ৫ টি পোস্ট এসেছিল, আরেক দিন ৪ টি। অনেক সময় আমার যারা ঘনিষ্ঠ মানুষ তাদের অনেকেই রেগে যেতেন এবং বলতেন যে চলেন আমরা ২০-২৫ মিলে ঝাঁপিয়ে

এই ধরনের বিশ্বাস নিয়ে যদি আপনি প্রতিদিন লেগে থাকতে পারেন তাহলে সাফল্য আসতে বাধ্য

ই-ক্যাব এর ফেইসবুক গ্রুপে ২৩ মাস ধরে প্রতিদিন পোস্ট দিয়ে গেছি এখনও দেই। ব্লগ নিয়ে চেষ্টা করেছি। ধানমন্ডি লেকে অনেক আড্ডা দিয়েছি এবং ঢাকা বিভিন্ন প্রান্তে আড্ডা দিয়েছি অনেকের সঙ্গে। একদম একটানা এক বছর স্কাইপে প্রায় সারা রাত আড্ডা দিয়েছি

এক দুই বছর চেষ্টা করে অনেক কিছুই করা সম্ভব

২১-২৫ বয়সের অনেকের সঙ্গে ফেইসবুকে কথা হয়। আসলে ই-ক্যাব এবং সার্চ ইংলিশ দুই গ্রপের অন্তত ৮০% সদস্য মনে হয় এই বয়সের। আমার এই প্রফাইলের ফ্রেন্ড লিস্ট ও ফলোয়ারদেরও ৮০% তাই হবে। যাই হোক, বেশির ভাগের মনে লেখাপড়া এবং ক্যারিয়ার নিয়ে

দক্ষতাকে শক্তিতে পরিণত করার চেষ্টা করুন

প্রতিদিন অনেক মানুষের সঙ্গে আমার কথা বলতে হয়। ফেইসবুকে, স্কাইপে, মোবাইল ফোনে এবং বাস্তব জীবনে সামনা সামনি। কোণ কোন দিন এভাবে ৫০-৬০ জনের সঙ্গে কথা হয়। এর মধ্যেও কিন্তু আমার কাজ আমি ঠিকই করে যাই। একদিকে অভ্যাস্ত হয়ে গেছি আরেকদিকে

নিজের মত করে চলুন

বাংলাদেশের প্রচলিত সংজ্ঞায় আমি সবচেয়ে আনস্মারট মানুষদের একজন। অন্তত পোশাকে তো বটেই। হাফ শার্ট, স্যান্ডেল আর মাথায় উসকো খুশকো চুল- আমার এই বেশভূষা নিয়ে অনেকে অনেক মজা করে ব্যঙ্গ বিদ্রুপ করে তা আমি ভাল মতই জানি। ইংরেজিতে লেখাপড়া করলেও ই-ক্যাব

২৩ মাসের কিছু উপলব্ধি

ই-ক্যাব নিয়ে দিন রাত চেষ্টা করার দুই বছর হবে এই ১ নভেম্বর তারিখে। ২৩ মাস ধরে লেগে থাকার ফলে ই-ক্যাবের যে অগ্রগতি নিজের চোখের সামনে দেখেছি তাতে করে ভাল কিছু জিনিশ শিখেছিঃ ১। মনের ভেতর থেকে বিশ্বাস করি যে লেগে

মিডিয়ায় ই-কমার্স নিয়ে প্রচার

ই-কমার্স এর প্রসার এর জন্য মিডিয়াতে ই-কমার্সকে তুলে ধরা দরকার। টেলিকম কোম্পানি গুলোর এদিকে আগ্রহ এবং আলিবাবার বাংলাদেশে পরোক্ষভাবে বাংলাদেশে যাত্রা শুরু এসব কারনে ই-কমার্স এর ব্যপারে মিডিয়াতে আগ্রহ দিন দিন বাড়বে। দৈনিক পত্রিকা গুলোর এদিকে আগ্রহ বাড়ছে এবং এখন

আসল আলিবাবা বনাম নকল আলিবাবা

ই-ক্যাবের আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেয়া হয় ২০১৪ সালের ৮ নভেম্বর থেকে। আমি ২০১৪ সালের ১ নভেম্বর থেকে ফেইসবুকে এমন খেয়ে না খেয়ে দিন রাত একটিভ। মানে এ মাস শেষে আমার ২ বছর হয়ে যাবে। ই-ক্যাবের আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেবার পর শুরু হয়ে

অজুহাত দিয়ে জেতা যায় না

প্রতিদিন অনেকেই আমাকে ফেইসবুকে মেসেজ দেন তাদের ব্যস্ততার কথা জানিয়ে। তাই তারা কম সময় লাগে এমন কোন শর্ট কাট পদ্ধতি খুজেন। নানা রকম ব্যস্ততার কথা বলেন। আমি শুধু এটুকু বলি যে আপনার যদি সময় না থাকে তাহলে ইংরেজি শেখার পেছনে

যারা লেখাপড়া করছেন তাদের জন্য এই পোস্ট

প্রতিদিন ফেইসবুকের ইনবক্সে সার্চ ইংলিশ এবং অন্য গ্রুপের (বিশেষ করে বিসিএস গ্রুপ) অনেকেই আমাকে মেসেজ দেন যে তারা ইংরেজিতে অনার্স করছেন বা অন্য সাবজেক্টে পড়ছেন (যেমন বিবিএ) এবং সেখানে ইংরেজিতে দুর্বলতার কারনে ফেল করছেন বা খুব খারাপ রেজাল্ট করছেন। ইংরেজি

ফেইসবুকে বিজ্ঞাপন দেয়া নিয়ে কিছু কথা

বাংলাদেশে ই-কমার্স এর মার্কেটিং এর প্রধান চ্যানেল হল ফেইসবুকে বিজ্ঞাপন। গত ২ বছরে অনেক পরিবর্তন দেখেছি। আর বিজ্ঞাপন দেবার ব্যপারে অনেকেই কোম্পানি বা লোক খুজেন। প্রথম দিকে ফরিদপুরের জামি ভাই এবং ঢাকার তাসদিক হাবিব ভাইয়ের কথা বলতাম। এখন আরও দুই

বাংলাদেশে ইংরেজি ভাষার একটি বড় বাজার গড়ে উঠবে

আকাশভরা সূর্য-তারা, বিশ্বভরা প্রাণ, তাহারি মাঝখানে আমি পেয়েছি মোর স্থান, বিস্ময়ে তাই জাগে আমার গান॥ আগামীকাল বিকেলের মধ্যে আশা করি সার্চ ইংলিশ গ্রুপে ২০,০০০ মেম্বার হয়ে যাবে। স্কাইপে আড্ডাতে এক মাস পরে যোগ দিয়েছি এবং অনেক ভাল লাগছে। মাহফুজ মান্না

সাধনার মূল্য দিতে শিখুন

মাস্টার্স পাশ করে চাকুরিতে ঢুকে তারপর ২০০০ সালে আমি প্রথম পিসি বা ডেস্কটপ কম্পিউটার হাতে পাই। অর্থাৎ অনেকের তুলনায় অনেক দেরিতে কম্পিউটার ব্যবহার শুরু করি। প্রথম দিকে টাইপ করতে খুব কষ্ট হত। কিন্তু এক সময় লেগে থাকতে থাকতে গতি চলে

দিনে ২৫ টি কমেন্ট

যেখানে একদিনে এখন পর্যন্ত ৯৩ জন ৫০ টি করে কমেন্ট লিখে দেখিয়েছেন এবং ৩২ জন একদিনে ১০০ কমেন্ট করে দেখিয়েছেন সেখানে কেন আমি দিনে ২৫ টি কমেন্ট লেখার কথা বলছি? যারা এখনো একদিনে ৫০ টি কমেন্ট লেখেন নি, তারা লিখে

ভুল করার ভয়ে না লেখা

ভুল করার ভয়ে না লেখা ফেইসবুকের ইনবক্সে সপ্তাহে না হলেও ৩০-৪০ জন বলেন যে তারা ইংরেজিতে লিখতে চান কিন্তু ভুল হবে এই ভয়ে লেখেন না। আমার উত্তর থাকে আপনি না লেখেন তাহলে লিখতে পারবেন কি করে? ভাষার মূল উদ্দেশ্য যোগাযোগ

গ্রামার, ভোকাবুলারি এবং কারেকশন

১ সেপ্টেম্বর ২০১৬ মানে এই শনিবারে সার্চ ইংলিশ গ্রুপের বয়স ৩ মাস হবে। প্রথম থেকেই আমি গ্রামার চর্চার বিপক্ষে ছিলাম। আমার যুক্তি ছিল যে আগে আপনারা ইংরেজি লেখা, পড়া, বলা, শোনা এবং বোঝাতে ফ্লুয়েন্ট হন তারপর নিজেরা গ্রামার পড়বেন এবং

কোন কিছুতে দক্ষ হতে ভয় পাবেন না

আমার বয়সের খুব কম মানুষই বাংলাদেশে ফেইসবুকে আমার মত একটিভ। ২০১৪ সালের ১ নভেম্বর থেকে আমি ই-ক্যাব এর জন্য ফেইসবুকে দিন রাত সময় দেয়া চেষ্টা করি। এর আগে আমি খুব একটা ছবি তুলতাম না। ছোটবেলা থেকেই এটি আমার অভ্যাস ছিল।

আপনি যদি স্বপ্ন পুরন করতে চান তবে কষ্ট করতে হবে

অনেকেই বলে আমি নাকি রোবট বা যন্ত্রের মত কাজ করি। কথাটা হয়তো একেবারে মিথ্যা নয়। আমি কাজ করতে ভালবাসি কারণ আমি জানি যে স্বপ্ন পূরণ করতে হলে কাজ করার কোন বিকল্প নেই। ১৯৯৮ সালে মাস্টার্স পাশ করি এবং সেই হিসেবে

জীবনে লেগে থাকলে ৯০% ক্ষেত্রে সাফল্য আসে

জীবনে অনেক বার অনেক কিছুতে ব্যর্থ হয়েছি, হেরে গেছি এবং বার বার পরে গেছি। কিন্তু প্রতিবার আরও জোরে চেষ্টা করেছি। এভাবে চেষ্টা করতে করতে এখন এমন একটি অবস্থায় চলে এসেছে যে নিজের জ্ঞান, দক্ষতা ও অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে ভাল কিছু

সিরিয়াস ভাবে চেষ্টা না করলে টেকার সম্ভাবনা থাকে না

গত ৩ মাস ধরে ইংরেজি চর্চা নিয়ে নিয়মিত পোস্ট দেয়ার কারনে অনেক তরুন আমাকে নিয়মিত মেসেজ দেন। বিসিএস, ব্যাংক ও অন্যান্য চাকুরির পরীক্ষা এবং অনার্সে ভর্তি পরিক্ষার প্রস্তুতি নিচ্ছেন তারা। আমি তাদের বলি সব কিছু বাদ দিয়ে ইংরেজিতে সময় দিতে

দেড় বছর আগের ছবি

আজ থেকে দেড় বছর আগের ছবি মহান ভাই আর খায়ের ভাইয়ের। তখন তারা ঢাকায় টিকে থাকার সংগ্রামে ব্যস্ত। ই-ক্যাবেরও রেজিস্ট্রেশন তখন ছিল না এবং আমার নিজের জীবনও ঘোরতর ভেজালের মধ্যে। ২০১৫ সালের এপ্রিল মাসের ২৪ তারিখের ছবি। এমনি খারাপ সময়ের

ফেইসবুক পেইজের এডমিন করবেন না অন্য কাউকে

গত ৭ দিনে ৮ টা অভিযোগ এসেছে এই বিষয় নিয়ে আমার কাছে। ১। দুজনের কাহিনী একদম একই রকম। পার্টনারকে ফেইসবুক পেইজের এডমিন করেছেন এবং তারপর পার্টনার সেই পেইজ থেকেই আসল মালিককে ডিলিট করে দিয়েছেন। ২। বিজ্ঞাপন দেবার জন্য পরিচিত কাউকে

সেপ্টেম্বর ২০১৬ এর শেষ দিন আজ

সেপ্টেম্বর ২০১৬ এর শেষ দিন আজ। গত ২৩ টা মাস এভাবে প্রতিদিন লেগে ছিলাম ই-ক্যাব নিয়ে। দিন রাত চেষ্টা করেছি, সময় দিয়েছি। ই-ক্যাব আজকে সফল অ্যাসোসিয়েশান। ই-ক্যাবে চেষ্টা করেছি নিজের কিছু দর্শন প্রতিষ্ঠিত করতে। প্রথম থেকেই চিন্তা ছিল সবাইকে তথ্য

ওয়েবসাইট বানাতে কত টাকা লাগবে

যারা বলেন যে ওয়েবসাইট বানাতে কত টাকা লাগবে তাদের বলি অন্তত ১ মাস ই-কমার্স নিয়ে একটু আমাদের ব্লগ পড়েন আগে আর গ্রুপে সময় দিন। দয়া করে এ ধরনের বেসিক ব্যপার না জেনে না বুঝে ই-কমার্সে নামবেন না। ওয়েবসাইট বানানোর খরচ

দুদিনের পরিচয়ে লেনদেন করবেন না

প্রথম দর্শনে প্রেম ভালবাসা হতে পারে কিন্তু প্রথম দর্শনে ব্যবসা ও লেনদেন হওয়া উচিৎ নয়। দয়া করে এই ধরনের বোকামি করবেন না। যে কারো সঙ্গে ব্যবসা বা টাকার সম্পর্কে জড়ানোর আগে দয়া করে তাকে আগে চিনুন এবং তার সম্পর্কে জানার

যারা ই-কমার্সে নামতে চাচ্ছেন তাদের জন্য কিছু কথা

গত ২৩ মাসে ই-ক্যাবের কারনে ফেইসবুকে আমি খুবই একটিভ রয়েছি। অনেক তরুনের সঙ্গে কথা হয়েছে অন্তত ২৩০০ জনের সঙ্গে তো হবেই। বেশির ভাগ তরুণদের ই-কমার্সে নামা থেকে বিরত রাখতে পেরেছি না হলে এখন হয়তো ই-ক্যাবের মেম্বার সংখ্যা ১০০০ হয়ে যেত।

সময় দিন, গুরুত্ব দিন, মনোযোগ দিন

সার্চ ইংলিশ গ্রুপে অনেকেই যোগ দিয়েছেন এজন্য যে ইংরেজিতে দুর্বলতার কারনে তারা লেখাপড়ায় ভাল করতে পারছেন না এবং অনেকেই আবার চাকুরি পাচ্ছেন না ইংরেজির কারনে। অনেকে আবার ইংরেজি সাহিত্য নিয়ে লেখাপড়া করছেন। কেউ কেউ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ইংরেজি মাধ্যমে বিবিএ বা

ভয় নেই

আর ২৪ ঘণ্টার মধ্যে সার্চ ইংলিশের মেম্বার ৪০,০০০ ছাড়িয়ে যাবে। অনেক ধন্যবাদ সবাইকে। আমরা আর ছোট গ্রুপ নই। যথেষ্ট বড় এবং তার থেকেও অনেক বেশি একটিভ একটি গ্রুপ। যে দেশে পরিক্ষার খাতার বাইরে ইংরেজি চর্চার সংস্কৃতি তেমন জোরালো নয় সেখানে

তিন মাস

ঘড়ির কাটা অনুযায়ী এখন অক্টোবর মাসের ১ তারিখ। এ বছরের আর ঠিক তিন মাস বাকি আছে। চলুন এই তিন মাসকে কাজে লাগানোর চেষ্টা করি। খুব বেশি কিছু করতে হবে না। শুধু চেষ্টা করুন প্রতিদিন অন্তত ২ ঘণ্টা সময় দেবার জন্য।