কার তাতে কি?

সার্চ ইংলিশ গ্রুপ আর ওয়েবসাইট নিয়ে আমার স্বপ্ন খুব পরিষ্কার এবং সোজা সাপ্টা। আমি চাই এখানে সময় দিয়ে আপনারা ভয় আর লজ্জা কাটিয়ে ইংরেজি চর্চা করুন দিন রাত। ১। যারা লেখা পড়া করছেন তাদের জন্য ইংরেজি খুব দরকার। আমাদের দেশে

লেখাপড়া ও ইংরেজি

এই গ্রুপের বেশির ভাগ মানুষ মনে হয় অনার্স লেভেলে লেখাপড়া করছেন বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় এবং কলেজ গুলোতে। কিছু মানুষ ইংরেজি সাহিত্য নিয়ে লেখাপড়া করছেন এবং তাদের সংখ্যা অন্তত ১০০০ এর মত হবে। আর এর বাইরে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে পড়ছেন অনেকে। যারা

সার্চ ইংলিশ কোন অ্যাসোসিয়েশান নয়

ই-ক্যাব নিয়ে গত ২৬ মাসে অনেক খারাপ সময় পার হয়েছি, ভেজাল পার হয়েছি প্রায় প্রতিদিন না হলেও প্রতি সপ্তাহে একটা দুইটা। ই-ক্যাবের পালটা কিছু করার চেষ্টা হয়েছে ১০-১১ বার। সেই তুলনায় সার্চ ইংলিশে কোন ভেজাল নেই। পালটা কিছু করার চেষ্টা

সার্চ ইংলিশ গ্রুপে ভাল পোস্টঃ ৯ অক্টোবর ২০১৬

সার্চ ইংলিশ গ্রুপে ভাল পোস্ট উৎসাহিত করার জন্য কমেন্ট করার উদ্যোগের এটি একটি টেস্ট। এই পরীক্ষা আমি আমার ব্যক্তিগত ওয়েবসাইটে করছি আজকের জন্য। তবে কাল বা পরশু থেকে তা সার্চ ইংলিশ ওয়েবসাইটে হবে। আইডিয়া খুবই সাধারণ। নিচের লিঙ্ক গুলোতে ক্লিক

সার্চ ইংলিশঃ ৫০,০০০ মেম্বার

আর কয়েক ঘণ্টার মধ্যে সার্চ ইংলিশ গ্রুপের সদস্য সংখ্যা ৫০,০০০ হয়ে যাবে। আমরা আর ছোট গ্রুপ নই। বরং বড় গ্রুপ হয়ে যাচ্ছি। যে পরিমান পোস্ট আর কমেন্ট আসে তাতে করে বাংলাদেশের অন্যতম একটিভ গ্রুপে পরিণত হয়েছি আমরা। ৯৯ দিন আগে

একজন ছাত্র যখন একদিনে ১ ঘণ্টা ইংরেজিতে কথা বলতে পারবে

আজকে শিক্ষক দিবস ছিল। ঘুম থেকে উঠতেই দেখি ফারহানা আশা আপুর পোস্ট, বিশ্বজিৎ অধিকারি ভাইয়ের পোস্ট। এরপর একের পর এক পোস্ট আসে এই গ্রুপে। ধন্যবাদ সবাইকে। আমি আসলে শিক্ষক নই। ক্যারিয়ার শুরু করেছিলাম শিক্ষকতা দিয়ে। ইংরেজির শিক্ষক ছিলাম। পড়াতে গিয়ে

অজুহাত দিয়ে জেতা যায় না

প্রতিদিন অনেকেই আমাকে ফেইসবুকে মেসেজ দেন তাদের ব্যস্ততার কথা জানিয়ে। তাই তারা কম সময় লাগে এমন কোন শর্ট কাট পদ্ধতি খুজেন। নানা রকম ব্যস্ততার কথা বলেন। আমি শুধু এটুকু বলি যে আপনার যদি সময় না থাকে তাহলে ইংরেজি শেখার পেছনে

যারা লেখাপড়া করছেন তাদের জন্য এই পোস্ট

প্রতিদিন ফেইসবুকের ইনবক্সে সার্চ ইংলিশ এবং অন্য গ্রুপের (বিশেষ করে বিসিএস গ্রুপ) অনেকেই আমাকে মেসেজ দেন যে তারা ইংরেজিতে অনার্স করছেন বা অন্য সাবজেক্টে পড়ছেন (যেমন বিবিএ) এবং সেখানে ইংরেজিতে দুর্বলতার কারনে ফেল করছেন বা খুব খারাপ রেজাল্ট করছেন। ইংরেজি

বাংলাদেশে ইংরেজি ভাষার একটি বড় বাজার গড়ে উঠবে

আকাশভরা সূর্য-তারা, বিশ্বভরা প্রাণ, তাহারি মাঝখানে আমি পেয়েছি মোর স্থান, বিস্ময়ে তাই জাগে আমার গান॥ আগামীকাল বিকেলের মধ্যে আশা করি সার্চ ইংলিশ গ্রুপে ২০,০০০ মেম্বার হয়ে যাবে। স্কাইপে আড্ডাতে এক মাস পরে যোগ দিয়েছি এবং অনেক ভাল লাগছে। মাহফুজ মান্না

দিনে ২৫ টি কমেন্ট

যেখানে একদিনে এখন পর্যন্ত ৯৩ জন ৫০ টি করে কমেন্ট লিখে দেখিয়েছেন এবং ৩২ জন একদিনে ১০০ কমেন্ট করে দেখিয়েছেন সেখানে কেন আমি দিনে ২৫ টি কমেন্ট লেখার কথা বলছি? যারা এখনো একদিনে ৫০ টি কমেন্ট লেখেন নি, তারা লিখে

ভুল করার ভয়ে না লেখা

ভুল করার ভয়ে না লেখা ফেইসবুকের ইনবক্সে সপ্তাহে না হলেও ৩০-৪০ জন বলেন যে তারা ইংরেজিতে লিখতে চান কিন্তু ভুল হবে এই ভয়ে লেখেন না। আমার উত্তর থাকে আপনি না লেখেন তাহলে লিখতে পারবেন কি করে? ভাষার মূল উদ্দেশ্য যোগাযোগ

গ্রামার, ভোকাবুলারি এবং কারেকশন

১ সেপ্টেম্বর ২০১৬ মানে এই শনিবারে সার্চ ইংলিশ গ্রুপের বয়স ৩ মাস হবে। প্রথম থেকেই আমি গ্রামার চর্চার বিপক্ষে ছিলাম। আমার যুক্তি ছিল যে আগে আপনারা ইংরেজি লেখা, পড়া, বলা, শোনা এবং বোঝাতে ফ্লুয়েন্ট হন তারপর নিজেরা গ্রামার পড়বেন এবং

সময় দিন, গুরুত্ব দিন, মনোযোগ দিন

সার্চ ইংলিশ গ্রুপে অনেকেই যোগ দিয়েছেন এজন্য যে ইংরেজিতে দুর্বলতার কারনে তারা লেখাপড়ায় ভাল করতে পারছেন না এবং অনেকেই আবার চাকুরি পাচ্ছেন না ইংরেজির কারনে। অনেকে আবার ইংরেজি সাহিত্য নিয়ে লেখাপড়া করছেন। কেউ কেউ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ইংরেজি মাধ্যমে বিবিএ বা

তিন মাস

ঘড়ির কাটা অনুযায়ী এখন অক্টোবর মাসের ১ তারিখ। এ বছরের আর ঠিক তিন মাস বাকি আছে। চলুন এই তিন মাসকে কাজে লাগানোর চেষ্টা করি। খুব বেশি কিছু করতে হবে না। শুধু চেষ্টা করুন প্রতিদিন অন্তত ২ ঘণ্টা সময় দেবার জন্য।

১৫ সেপ্টেম্বর- ১৪ অক্টোবর ২০১৬: কমেন্ট মাস

এই এক মাস আমরা দিন রাত কমেন্ট লিখবো। প্রতিটি পোস্টে লেখার কমেন্ট চেষ্টা করবো। না পারলেও যতটা সম্ভব চেষ্টা করবো। অন্তত ১০ টি কমেন্ট তো লেখা যায়ই যেখানে একদিনে অনেকে ৫০ টি বা এমনকি ১০০ কমেন্ট করে দেখিয়েছেন। ভুল বা

গ্রামার নিয়ে কিছু কথা

প্রতিদিন ফেইসবুকের ইনবক্সে ৪-৫ জনের সঙ্গে কথা হয় এই গ্রামার নিয়ে। তারা মেসেজ দিয়ে বলেন যে গ্রামার শিখতে চান এবং সার্চ ইংলিশ গ্রুপে কেন গ্রামার নিয়ে কিছু বলি না। আমি বলি যে এটি আরও অন্তত ৬ মাস পরের ব্যপার। কেউ

শুরু থেকে শুরু হোক

আমি ঠিক কিছুটা না বরং পুরাই পাগলাটে ধরনের মানুষ। আমি আমার নিজের বিশ্বাসের জন্য জান প্রান দিয়ে চেষ্টা করি, পরিশ্রম করি, সময় দেই। যারা আমার ফ্রেন্ড লিস্টে আছেন বা যারা ই-ক্যাব নিয়ে আমাকে চেষ্টা করতে দেখেছেন তারা জানেন যে গত

এক মাস এবং অভ্যাস গড়া

এখন প্রতিদিন ১০-১২ জন ফেইসবুকে জিজ্ঞেস করেন যে কমেন্ট করার পর কি করবো? আমি একটাই উত্তর দেই এক মাস ধরে কমেন্ট করে যান। এর পরের প্রশ্ন আসেনঃ আমি তো কমেন্ট করতে পারি এবং করছি। এর পরে কি করবো? আমার উত্তর-

এক দিনে ১০০ কমেন্ট এর বেশি কেউ লিখবেন না

কমেন্ট লেখার জন্য আমি গত ৮০ দিন ধরে প্রতিদিন ধরে বলে গেছি এবং এখন আপনারা সমানে কমেন্ট লিখছেন বলে আমি মহা খুশী। ২৩ জন ১০০ কমেন্ট লিখে ফেলেছেন এবং আরও অনেক বাড়বে। তবে সবার প্রতি একটাই অনুরোধ একদিনে কেউ ১০০

সময় ও শ্রম দিতে হবে

গ্রুপের নিয়ম ভেঙ্গে বাংলাতে এই পোস্ট দিচ্ছি যাতে করে সবাই আরও ভাল করতে বুঝতে পারে। তবে এই পোষ্টের সব কমেন্ট ইংরেজিতে দিতে হবে। ১০,০০০ মেম্বার হওয়া উপলক্ষে কিছু কথা আসলেঃ ১। কমেন্ট করার চেষ্টা করুন সব পোষ্টে। এটি আমি করতে

আপনার প্রথম কমেন্ট

গ্রুপে এখন থেকে মাঝে মধ্যে বা দিনে একটা করে বাংলা পোস্ট আমি দেব। তবে অন্য কেউ এটি করতে পারবেন না। আমি দিচ্ছি আপনাদের অনুপ্রাণিত করার জন্য এবং সেই সঙ্গে কিছু জিনিশ শেখানোর জন্য। তবে পোস্ট বাংলাতে হলেও কমেন্ট কিন্তু ইংরেজিতে

ভুল নিয়ে টেনশন করবেন না

(প্রতিদিন আমি একটি করে বাংলাতে পোস্ট দিচ্ছি। তবে কমেন্ট ইংরেজিতে করতে হবে)। প্রতিদিন বেশ কয়েকজন আমার পোস্ট গুলোতে বলেন যে তারা যাই লেখেন গ্রামারে ভুল করেন এবং তা নিয়ে টেনশনে আছেন বা তা যেন ঠিক করে দেয়া হয়। আপনি পারেন

কমেন্ট লিখে কি লাভ?

আমাকে অনেকেই জিজ্ঞেস করেন যে কমেন্ট লেখার ব্যপারে কেন আমি এত গুরুত্ব দেই। কেন প্রতিদিন ঘুরিয়ে ফিরিয়ে একই কথা বলি? আসলেই কি কোন লাভ আছে? হ্যাঁ, অনেক লাভ আছে। ১। কমেন্ট লেখার মাধ্যমে ইংরেজি চর্চা হচ্ছে। আপনার ভয়, লজ্জা আর

আপনি পারছেন, আপনি পারবেন

গ্রুপে মাত্র ৪ দিন আগে বাংলাতে প্রথম পোস্ট দেই। উদ্দেশ্য ছিল একটাই- আপনাদের কমেন্ট করতে অনুপ্রানিত করা। ৪ দিনে কমেন্টের বন্যা বয়ে গেছে বলা যায়। অন্তত আমার পোস্ট গুলোতে অনেক কমেন্ট আসছে আর অন্য সবার পোস্টেও কমেন্ট এর সংখ্যা বাড়ছে।

চারটা মাস মাত্র চারটা মাস

অগাস্ট মাস শেষের পথে। এরপর বছরের ৪ মাস বাকি আছে। আজকে ঘুম থেকে উঠে যখন সার্চ ইংলিশের পোস্ট গুলো পড়ছিলাম তখন নিজের কাছেই বিশ্বাস হচ্ছিল না। না, অনেক ভুল আছে পোস্ট গুলোতে- অনেক, অনেক এবং অনেক। কিন্তু প্রতিটি পোস্ট ভাল

কমেন্ট লেখার পঞ্চম লাভ

কয়েক ঘণ্টা আগে আমি একটি পোস্ট দিয়েছিলাম যেখানে কমেন্ট লেখার ৪ টি ভাল দিক উল্লেখ করেছিলামঃ ১। যে পোষ্টে কমেন্ট করছেন তা পড়তে হচ্ছে। তাই আপনার পড়ার গতি বাড়বে। ২। পড়ে বুঝতে পারছেন তাই ইংরেজি বোঝার ক্ষমতা বাড়বে। ৩। উত্তরে

আপনা-মাঝে শক্তি ধরো, নিজেরে করো জয়

মুক্ত করো ভয়, আপনা-মাঝে শক্তি ধরো, নিজেরে করো জয় সার্চ ইংলিশ গ্রুপে মেম্বার সংখ্যা ১৫,০০০ হতে খুব বেশি সময় লাগবে না। হয়তো পরশু দিন হয়ে যাবে ইনশাল্লাহ। যাই হোক আমাদের সমাজে ইংরেজি নিয়ে প্রচণ্ড ভয় কাজ করে সবার মধ্যে। অনেকেই

আমরা করবো জয় একদিন

পরশু দিন মানে ১ সেপ্টেম্বর সার্চ ইংলিশ গ্রুপের বয়স ২ মাস হবে। ১৫,০০০ এর কাছাকাছি মেম্বার হবে আশা করি এবং এখন থেকে যদি প্রতি মাসে এভাবে ১০,০০০ করেও যোগ হয় তাহলে এ বছরের মধ্যে ৫০,০০০ মানুষ এই গ্রুপে যুক্ত হবে।

এক সপ্তাহ, এক মাস, এক বছর

স্কাইপ আড্ডাতে নিয়ম হল নতুন যে কাউকে প্রথম ৭ দিন শুনতে হয় এবং তারপর কথা বলার সুযোগ দেয়া হয়। এর কারণ হল ইংরেজিতে কথা বলা নিয়ে অনেক জড়তা কাজ করে আমাদের অনেকের মধ্যে এবং আপনি যদি প্রথমেই ধাক্কা খান সবার

গতি কেন দরকার?

গ্রুপে কেউ যোগ দিলে তাকে বলি যে আগে ৫ দিনে ১০০ পোষ্টে কমেন্ট লিখুন। অনেকেই আমাকে ইনবক্সে বলেন যে তাদের একটি পোস্ট পড়ে কমেন্ট লিখতে ১ ঘণ্টা চলে যায়। তাই এত কমেন্ট লেখা সম্ভব নয়। একটি পোস্ট ৩০০ শব্দের মত

আমি না, আপনি

প্রতিদিন সার্চ ইংলিশে গ্রুপে এখন অন্তত ১০ টি পোষ্টে হয় আমাকে ট্যাগ করা হয় না হয় আমার নাম উল্লেখ করা হয়। আরও ২০-৩০ বা ৫০ টি কমেন্টে প্রতিদিন আমার কথা বলা হয়। প্রশংসা শুনতে কার না ভাল লাগে? তবে মনে

সমন্বিত প্রজ্ঞা (Collective Wisdom)

দুই দিন আগে এ নিয়ে একটি পোস্ট ইংরেজিতে লিখেছিলাম। অনেকের বেশ পছন্দ হয় এবং অনেক কমেন্ট এসেছিল এখানে। অনেকে আমাকে ফেইসবুকে ইনবক্স করে ভাল লাগার কথা জানিয়েছেন। যাই হোক সেখানে আমি যা বলার চেষ্টা করেছি তাহল এই যে আমাদের গ্রুপে

সার্চ ইংলিশের চারটি সমস্যা

ইংরেজি শেখার জন্য বাংলাদেশে সবচেয়ে একটিভ গ্রুপ এখন সার্চ ইংলিশ। এখন প্রতিদিন মনে হয় ৪০-৫০ টা পোস্ট আসে আর কমেন্ট অন্তত ১০০০ বা তারও বেশি। কখনো কখনো নোটিফিকেশনের ঝড় বয়ে যায় রাতের দিকে এবং আমার ব্রাউজার হ্যাং করে। তাই প্রতিদিন

সার্চ ইংলিশঃ ৪ দিকে উন্নতি

সার্চ ইংলিশের বয়স ২ মাস হয়ে গেছে। যারাই এখানে অন্তত ১৫ দিন নিয়মিত সময় দেবার চেষ্টা করেছেন তাদের ৪ দিকে উন্নতি আমি লক্ষ্য করেছি। ১। আগের থেকে লেখার পরিমান অনেক বেড়েছে। অনেকেই এখন ১০০ শব্দের কমেন্ট অনেক সহজে করতে পারেন।

আমি পারি না, আমার এত সময় নেই

প্রতিদিন কমেন্ট করা নিয়ে পোস্ট দেই এবং অনেকেই আমাকে বলেন যে তাদের এত সময় নেই, তাহলে কি করা যায়? কারন প্রথম দিকে একটি কমেন্ট লিখতে অনেক সময় ৩০ মিনিট থেকে ১ ঘণ্টা লাগে। তাই ১০ টি কমেন্ট লিখতে কম পক্ষে

ভোকাবুলারি নিয়ে

ভোকাবুলারি নিয়ে প্রতিদিন অনেকে ফেইসবুকে মেসেজ দিয়ে টিপস চায়। অনেকে আবার আমাকে জানায় যে প্রতিদিন ২০ টি করে শব্দ মুখস্ত করছেন তারা এবং এভাবে ১ বছরে ৭০০০ শব্দ মুখস্ত করার স্বপ্ন তাদের। তাই তারা আমার কাছে বইয়ের নাম চান, পিডিএফ

পোস্ট পড়ে কমেন্টে লেখার কিছু পাই না

প্রতিদিন অনেকে একথা বলেন, এই গ্রুপের কমেন্টে এবং ফেইসবুকের ইনবক্সে মেসেজে। আপনি যদি তাদের একজন হন তাহলে এই পোস্ট আপনার জন্য অবশ্য পাঠ্য। ১। যদি তাই হয় তাহলে আপনি ইংরেজিতে বেশ দুর্বল। কারণ সার্চ ইংলিশ গ্রুপে তেমন কঠিন বিষয়ে পোস্ট

ভয় আর লজ্জা দূর হয়ে ইংরেজি হবে আপনাদের শক্তি

প্রতিদিন কেউ না কেউ গ্রামার নিয়ে আমাকে মেসেজ দেন। বইয়ের নাম জানতে চান, গ্রামার শেখার টিপস চান আর গ্রামার না জানার কারনে কষ্টের কথা বলেন। আমার উত্তর একটাই- এক মাস সব পোষ্টে কমেন্ট করার চেষ্টা করেন। এ নিয়ে অনেকেই বিরক্ত

সার্চ ইংলিশঃ সাধারণ মানুষের গ্রুপ

যারা আমার টাইমলাইনের পোস্ট গুলো পড়েন তারা ভাল করেই জানেন যে আমি একটি কথা নিয়মিত বলি- আমার স্বপ্ন ছিল আমার মত সাধারণ মানুষের জন্য একটি প্ল্যাটফর্ম গড়ে তোলা। ই-ক্যাবে তা করতে গিয়ে অনেক ভেজালের মধ্যে পরেছিলাম কিন্তু আমি হাল ছেড়ে

এক বাক্যের কমেন্ট

এখন অনেকেই কমেন্টে ১০০ শব্দ লিখতে পারেন এবং লিখে থাকেন। অনেক ভাল লাগে দেখতে। এটি দেখে আবার অনেকেই মন খারাপ করেন যে তারা লিখতে পারেন না। যাদের কমেন্ট লেখা একদম আসে না তাদের জন্য এই পোস্ট। ১ বাক্য দিয়ে শুরু

পারি না পারবো না করি না করবো না

মেসিকে আমরা সবাই চিনি। আমাদের সময়ে সেরা ফুটবলার। কিন্তু একদম সাধারণ ব্যাকগ্রাউন্ড ছিল। হরমোনের ঘাটতি জনিত রোগ থাকার কারনে তার বাবা মা পরিবার নিয়ে বার্সেলোনাতে চলে আসতে বাধ্য হয় কারণ বার্সেলোনা ক্লাব তার চিকিৎসার খরচ বহন করতে রাজি হয়েছিল। সাধারণ

একদিনে ৫০ টি কমেন্ট

অন্তত দুজন আজকে একদিনে ৫০ টি কমেন্ট লেখার চেষ্টা করছেন এবং তাদের হয়ে যাবে আগামি ১ ঘণ্টার মধ্যে। তারা দুজন চেষ্টা করলে হয়তো আজকে ১০০ টি পোস্টে কমেন্ট করতে পারতেন বা আগামি মাসে হয়তো করবেন। তারা কিন্তু এক বাক্যের কমেন্ট

৮ ঘণ্টা কাজ কিংবা খেলা

কাজ করতে কারো ভাল লাগে না কিন্তু খেলা, আমার এবং বিনোদন সবার ভাল লাগে। তাই আমরা ক্লাস ফাকি দিয়ে সিনেমা বা খেলা দেখতে চলে যেতে পছন্দ করি। খেলা বা সিনেমা বাদ দিয়ে পড়তে বসতে পছন্দ করি না। আসলে এজন্য আমরা

লাভ অথবা লোকসান

এই গ্রুপে যারা একটু একটিভ তাদের অনেককেই ফেইসবুকের ইনবক্সে মেসেজ দিয়ে বলা হয় যে সার্চ ইংলিশ গ্রুপে এত সময় দিয়ে কি লাভ? আবার গ্রুপের কেউ কেউ ইনবক্সে আমাকে প্রশ্ন করেন- এত সময় দিয়ে এত কমেন্ট করে কি লাভ? সেই অর্থে

আমরা পারি

দুই মাস ১১ দিন বয়স সার্চ ইংলিশ গ্রুপের। আমরা এখন অনেকেই ১০০ শব্দের বেশি কমেন্ট লিখতে পারি। অন্তত ৫০ জন তা পারি। আর আজ ৪ জন ৫০ টির বেশি কমেন্ট লিখেছেন। তার মধ্যে মুক্তা আপুর কান্ড দেখে আমি সত্যিই অভিভূত

এক দিনে ৫০ কমেন্ট সম্ভব

গতকাল ৪ জন তা করেছেন। আজকে ইতিমধ্যেই শিশির অমিত ভাই করেছেন। সোহেল পারভেজ ভাইও করে ফেলবেন। আজকেও মনে হয় ৪ জন না ৬ জন করে ফেলবেন। এই ১০ জনের মধ্যে অন্তত ৮ জন ইংরেজিতে কাঁচা ছিলেন, দুর্বল ছিলেন এবং ভয়

প্রতিযোগিতা, অংশগ্রহন এবং সহযোগিতা

আজকে ১৭ জন মনে হয়ে ৫০ টি করে কমেন্ট লিখতে পেরেছেন এবং এর মধ্যে ২ জন আবার ১০০ কমেন্ট লিখতে পেরেছেন। আমাদের দেশে সমস্যা হল ছোটবেলা থেকে আমাদের মধ্যে প্রতিযোগিতার চিন্তা টিচার আর গার্জিয়ানরা ঢুকিয়ে দেন।। ক্লাস টু তে আপনি

১০ টি কমেন্ট দিয়ে শুরু করেন

গতকাল এই গ্রুপে ২২ জন ৫০ টি করে কমেন্ট লিখেছেন। তার আগের দিন আরও ৪ জন। এ দেখে আবার ৪৪ জনের মন খারাপ যে তারা কেন পারেন নি। ব্যস্ততা, অসুস্থতা, অলসতা যে কারণেই হোক না অনেকে লিখতে না পেরে ঈদের

প্রতিদিন সময় দিন

যারা এখন একদিনে ২০ টি কমেন্ট লিখছেন তারা কিছু উন্নতি মনে হয় সহজেই দেখতে পাচ্ছেন। পোস্ট পড়ে বুঝতে পারেন সহজেই, লিখতে কষ্ট হয় না, অনেক দ্রুত লেখা যায় এবং সবচেয়ে বড় কথা হল কমেন্ট লেখা এখন আর কোন ব্যপার না।

কমেন্ট লেখার কিছু উপকারিতা

অনেকেই এখন কমেন্ট লিখছেন এবং এর মাধ্যমে কিছু ভাল দিক আছে। তা লিখছি আমি এখানে। এর বাইরে কোন কিছু বাদ থাকলে একটু কমেন্ট করে যোগ করে দিন। ১। কমেন্ট লিখলে এক ধরনের আত্মবিশ্বাস আসে যে আপনি লিখতে পারেন। ২। পড়ার

সংখ্যা বনাম সফল উদাহরণ

গ্রুপে ২২,৩০০ এর বেশি মেম্বার আছে। এই সংখ্যা এখন প্রতিদিন গড়ে ৫০০ এর মত করে বাড়ছে। ফেইসবুকের একটি সাধারণ নিয়ম হল একটি গ্রুপ যত বেশি একটিভ হবে তার সংখ্যা তত সহজে বাড়বে। তাই এ মাসের মধ্যে ৩০,০০০ মেম্বার হলে অবাক

চিত্ত যেথা ভয় শূন্য , উচ্চ যেথা শির,

জ্ঞান যেথা মুক্ত এ পর্যন্ত ৩৮ জন একদিনে ৫০ টি কমেন্ট ইংরেজিতে লিখতে পেরেছেন। এখন থেকে প্রতিদিন ২-৩ জন এমনটা করবেন এতে সন্দেহ নেই। ১০০ জন হলে দারুন হবে। হয়তো এক সময় ১০০০ জন হয়ে যাবে। যত দিন যাবে তত

আমরা সবাই রাজা

সার্চ ইংলিশ গ্রুপে প্রথম থেকেই লক্ষ্য ছিল ভয়, লজ্জা আর সংকোচ ঝেড়ে ফেলে আমরা ইংরেজি চর্চা করবো। এখানে আমরা সবাই সমান, সবাই রাজা। ভেজাল হীন প্ল্যাটফর্ম এটি। তাই সবার প্রতি অনুরোধ রইলো মনের আনন্দে কমেন্ট করার। ভুল শুদ্ধ নিয়ে মাথা

ধন্যবাদ সবাইকে

গত ৫ দিনে ৫৯ জন ৫০ টি বা তার বেশি কমেন্ট একদিনে লিখতে পেরেছেন। এর মধ্যে আবার ১২ জন একদিনে ১০০ টি কমেন্ট লিখতে পেরেছেন। ৭ দিন আগেও এমন কিছু করা সবার কাছে অসম্ভব ব্যপার বলে মনে হত। আর এখন

কমেন্ট নিয়ে কিছু কথা

১। ৫০ টি কমেন্ট অনেকেই করছেন এবং ধন্যবাদ সবাইকে। একজনের কথা আমরা একবারই বলবো এবং তাদের সংক্ষিপ্ত পরিচিতি ওয়েবসাইটে ছবি সহ দিয়ে রাখবো। ২। ১০০ টি কমেন্ট যারা করবেন তাদের নিয়েও একবারই পোস্ট দেয়া হবে এবং তাদের সংক্ষিপ্ত পরিচিতি ওয়েবসাইটে

নিয়মিত যারা

সার্চ ইংলিশ গ্রুপে আর ২৪ ঘণ্টার মধ্যে হয়তো ২৫,০০০ মেম্বার হয়ে যাবে। এই গ্রুপ অনেক দ্রুত বড় হচ্ছে এবং এ মাসের মধ্যে হয়তো ৩০,০০০ এবং এ বছর শেষ হইতে ৭৫,০০০ মেম্বার হয়ে যাবে। এর মধ্যে ৫০০ জন মোটামুটি নিয়মিত এবং

আমার সবচেয়ে বড় লাভ

আড়াই মাস আগে একটি স্বপ্ন নিয়ে সার্চ ইংলিশ গ্রুপের যাত্রা শুরু হয়েছিল- ভয়, লজ্জা আর সংকোচ বাদ দিয়ে আমরা ইংরেজি চর্চা করবো। ভুল শুদ্ধ নিয়ে মাথা ঘামাবো না। আমরা লিখে যাবো। আমি ঘোষণা দিলেই এমনটা হয়ে যাবে না। বরং অনেক

৫০ কমেন্ট এর ম্যাজিক

এই যে গ্রুপে এখন পর্যন্ত ৭০ জন একদিনে ৫০ টি করে কমেন্ট লিখতে পেরেছে- এতে কার কি লাভ? যারা লিখতে পেরেছেন তাদের লাভ হল তাদের মধ্যে এক ধরনের আত্মবিশ্বাস চলে এসেছে যে তারা ইংরেজিতে লিখতে পারেন এবং পারবেন। আর যারা

ছোট ছোট স্বপ্নের নীল মেঘ

সার্চ ইংলিশ গ্রুপের সেরা সময় শুরু হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় ৯৫০ জন যোগ দিয়েছেন। এ পর্যন্ত ৮০ জন অন্তত ৫০ টি কমেন্ট করেছেন। দুই তিন দিনের মধ্যে এই সংখ্যা ১০০ হয়ে যাবে। তাদের মধ্যে অন্তত ৭০ জন মনে করতেন যে

৫০ কমেন্ট এর ম্যাজিক

এই যে গ্রুপে এখন পর্যন্ত ৭০ জন একদিনে ৫০ টি করে কমেন্ট লিখতে পেরেছে- এতে কার কি লাভ? যারা লিখতে পেরেছেন তাদের লাভ হল তাদের মধ্যে এক ধরনের আত্মবিশ্বাস চলে এসেছে যে তারা ইংরেজিতে লিখতে পারেন এবং পারবেন। আর যারা

সার্চ ইংলিশ নিয়ে আমার আসল উদ্দেশ্য

প্রতিদিন এক দুই জন আমাকে জিজ্ঞেস করে যে সার্চ ইংলিশ নিয়ে আমার আসল উদ্দেশ্য বা পরিকল্পনা কি? আমি উত্তর দেই, আমার পরিকল্পনা হল এমন একটি প্ল্যাটফর্ম তৈরি করা যেখানে মানুষ ভয়, লজ্জা আর সংকোচ বাদ দিয়ে ইংরেজি মন দিয়ে চর্চা

ইংরেজি শেখার বা চর্চা করার ভাল কোন সুযোগ নেই

  ২০১৫ সালের পুরোটা জুড়ে ই-কমার্স নিয়ে প্রতিদিন স্কাইপে আড্ডা দিয়েছি। এখন গত ১৩ দিন ধরে স্কাইপে ইংরেজি শেখা নিয়ে আড্ডা দিচ্ছি। বেশ মজার একটা জিনিস লক্ষ্য করলাম। ই-কমার্স এখনো ঢাকা কেন্দ্রিক এবং যারা স্কাইপে আড্ডা দিত তাদের ৮০% হয়

ইংরেজি নিয়ে সময় দিন

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ইংরেজি মাধ্যমে লেখাপড়া, ফ্রিল্যান্সিং-এ ইংরেজি দরকার মারাত্বক। ইংরেজির দরকার চাকুরির ইন্টারভিউতে। প্রতিদিন অন্তত ৪-৫ জন আমাকে ফেইসবুকে মেসেজ দেন যে তারা ইংরেজিতে ভাল হতে চান। আমি আমার স্কাইপ আইডি আর ফেইসবুকে ইংরেজি গ্রুপের লিঙ্ক দিয়ে বলি যে ৮

সবচেয়ে বড় সমস্যা হল ভয় এবং সংকোচ

  ইংরেজি শেখাতে গিয়ে লক্ষ্য করেছি সবচেয়ে বড় সমস্যা হল ভয় এবং সংকোচ। অনেকেই ধরে নেন যে তারা পারবেন না। বিশেষ করে প্রথম দিনে কাউকে যখন বলি যে তিনি মাত্র ১৫ দিনের মধ্যে ইংরেজিতে এক ঘণ্টা কথা বলতে পারবেন এবং

ইংরেজি শেখানো নিয়ে সাফল্য ও ব্যর্থতা

১৯৯৯ সালে চাকুরি জীবন শুরু করি শিক্ষকতা দিয়ে। কয়েকটি প্রাইভেট ইউনিভার্সিটিতে ইংরেজি বিভাগের লেকচারার ও টিচিং অ্যাসিস্ট্যান্ট ছিলাম। তিন বছর এই কাজ করি এবং ২০০২ সালের ১ জানুয়ারি থেকে এটি ছেড়ে দিয়ে ইন্টারনেটে বসে পরি। শিক্ষকতা ছেড়ে দিয়েছিলাম এক ধরনের

ইংরেজি শেখার কিছু সাধারন টিপস

ইংরেজি নিয়ে পড়েছি এবং এ বিষয় নিয়ে এক বছর ধরে লিখলেও মনে হয় শেষ হবে না। যাই হোক, কিছু জিনিস লিখছি, ঠিক টিপস নয়- আমার নিজের চিন্তা ভাবনা বা দৃষ্টি ভঙ্গীঃ ১। যে কোন জিনিস শেখার জন্য দুটি বিষয় খুব