George Eliot

 

Mary Anne Evans ( “Mary Ann” অথবা “Marian ) এর ছস্মনাম George Eliot । তিনি একজন ইংলিশ উপন্যাসিক , কবি , সাংবাদিক ,অনুবাদক , Victorian era এর সময়কাল একজন প্রধান লেখক । Adam Bede (1859), The Mill on the Floss (1860),  Silas Marner (1861), Middlemarch (1871–72), Daniel Deronda (1876) সহ তিনি সাতটি নভেলের লেখক , বেশির ভাগ লেখা প্রাদেশিক ইংল্যান্ড এবং তাদের জীবন ধর্মী বাস্তব দিকগুলো এবং মনস্তাত্ত্বিক দৃষ্টিগুলো ফুটিয়ে তুলেছেন ।

তিনি ছদ্মনাম ব্যবহার করতেন । তিনি বলেছিলেন , তাঁর কাজগুলো যাতে সঠিকভাবে মুল্যায়ন পাবার জন্যই তিনি ছদ্মনাম ব্যবহার করেন । Eliot এর সময়ে অনেক মহিলা লেখক প্রকাশনার সময় তাদের নিজেদের নাম ব্যবহার করতেন , কিন্তু তিনি সেই মহিলাদের শুধুমাত্র রোমান্টিক ধারা থেকে বের হয়ে আসতে চেয়েছেন । তিনি আলাদাভাবে একজন এডিটর এবং সমালোচক হিসেবে পরিচিত হতে চেয়েছিলেন । আরেকটি ব্যাপার হলো , তাঁর পারিবারিক জীবন সবার থেকে দূরে সরিয়ে রাখতে এবং George Henry Lewes এর সাথে জল্পনা কল্পনার খবর থেকে নিজেকে আলাদা রাখতে , তাঁর ছদ্ম নাম ব্যবহার করার পিছনে কারণ থাকতে পারে ।

এলিয়টের Middlemarch , Martin Amis এবং Julian Barnes সেরা উপন্যাস হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন ।

Life

Early life and education

Mary Ann এর জন্ম ইংল্যান্ডের , Warwickshire এর Nuneaton নামক শহরে । স্থানীয় ফ্যাক্টরির মালিক Robert Evans এবং  Christiana Evans এর দ্বিতীয় সন্তান তিনি । Mary Ann কে সংক্ষেপে marian নামেও ডাকতো । তাঁর জমজ ভাইয়েরা christina ছিল  Chrissey Isaac নামে পরিচিত । এই দুই ভাই মার্চের ১৮২১ সালে কিছুদিন সংগ্রাম করতে হয়েছিল । এক সৎ ভাই- বোন ছিল ,নাম Robert এবং Fanny । তাঁর বাবার পূর্বে বিবাহিত Harriet Poynton কে বিয়ে করেছিলেন ।। Robert Evans , Welsh এর বংশধর ছিলেন । Arbury Hall এর ম্যানেজার হিসেবে কর্মরত ছিলেন । Mary Ann. south farm এ জন্মগ্রহ্ন করেছিলেন । ১৮২০ সালে এই পরিবার Griff House এ স্থানান্তরিত হয় ।

এই তরুণী ইভান অনেক বুদ্ধিমতী , ভীষণ বইপড়ুয়া । তাঁর শারীরিক গঠন সুন্দর ছিল না বলে , তিনি বিয়ে নিয়ে তেমন চিন্তা করতেন না । তাঁর বাবা শিক্ষায় কিছু  বিনিয়োগ করেন যা বেশির ভাগ মহিলার সমর্থ ছিল না । ৫-৯ বছর বয়সে তিনি তাঁর বোনে Chrissey এর সাথে Attleborough তে Miss Latham’s school এ পড়াশুনা করেন । নয় থেকে তের বছর বয়সে Mrs. Wallington’s school , তের থেকে ষোল Miss Franklin’s school এ পড়াশুনা করেন । Mrs. Wallington’s school এ তিনি ধর্মপ্রচারক Maria Lewis কাছ থেকে শিক্ষা গ্রহন করেন । Miss Franklin’s  school এর ধর্মীয় পরিবেশে , এভানকে শান্ত করে তুলে ,যীশুর প্রতি বিশ্বাসকে আরও বাড়িয়ে তুলে ।

ষোল বছর বয়সে , এভান প্রচলিত কিছু শিক্ষা গ্রহণ করেন । তাঁর বাবার রাজ্যে গুরত্বপুর্ন ভুমিকা ছিল , সে Arbury Hall হলে যেতে পারত , যা তাঁকে স্বশিক্ষিত করে তুলেতে সাহায্য করেছে , তাঁর শাস্ত্রীয় শিক্ষা তাঁর কাজে লেগেছে । Chirstopher stray লক্ষ্য করে ” George Eliot” এর নভেল গ্রিক সাহিত্য এর সাথে মিল আছে , কিন্তু তাঁর থিম অনেকটা Greek tragedy কে প্রাধান্য দেয় । তাঁর এস্টেটে ঘন ঘন আসা যাবার কারনে , স্থানীয় ভুমালিক এবং সেখানকার গরিবদের জীবন যাপনের মধ্যে বিষম পার্থক্যগুলো তাঁর চোখে পরতো । আরেকটি বিষয় , তাঁর ছোট বেলা থেকে ধর্মের প্রতি ঝোঁকটা তাঁকে এই সব বিষয়ে আরও প্রভাবান্বিত করেছে । তিনি low church এর Anglican পরিবারে বেড়ে উঠেন । কিন্তু একই সময়ে , Midlands ধর্মীয় বিরোধিতা ক্রমেই বেড়ে উঠেছে ।

Move to Coventry

১৮৩৬ সালে তাঁর মা মারা যান । তখন তাঁর বয়স ১৬ বছর , নিজ বাড়ির দেখাশুনা করতে আবার ফিরে আসেন । কিন্তু তিনি তাঁর শিক্ষক Maria Lewis এর সাথে চিঠির মাধ্যমে যোগাযোগ রাখতেন । যখন তাঁর ২১ বছর বয়স , তাঁর ভাই Isaac বিয়ে করেন , পরিবারকে বাড়ি নিয়ে আয় , তাই ইভান এবং তাঁর বাবা Coventry এর কাছাকাছি Foleshill তে চলে যান । Coventry সমাজে যাতায়াতের কারনে Charles এবং Cara Bray এর সাথে তাঁর ঘনিষ্ঠতা তৈরি হয় । Charles Bray ফিতার কারখানা তৈরি করে বড়লোক হয়ে যান , এবং সম্পদের কিছু অংশ দিয়ে স্কুল এবং মানব-হিতৈষী কর্মকাণ্ডে ব্যয় করেন । এভান ধর্মীয় কিছু চিন্তা ধারা নিয়ে সন্দিগ্ন ছিলেন , কিন্তু Brays ছিলেন প্রগতিশীল চিন্তাভাবনার মানুষ । তাদের Rosehill নামে এক বাড়িতে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথাবার্তা , যুক্তি নিয়ে আলোচনা হত । । Robert Owen, Herbert Spencer, Harriet Martineau, এবং Ralph Waldo Emerson এর মতন অনেক তরুন মহিলা সেখানে আসা যাওয়া করত । সেই সমাজে , ইভানের সাথে কিছু উদার তত্বের সাথে পরিচিত ঘটে , লেখক David Strauss এবং Ludwig Feuerbach বাইবেলের গল্পের কিছু ত্রুটি নিয়ে আলোচনা করতেন । তাঁর প্রথম সাহিত্যিক কাজ ছিল ইংরেজি অনুবাদ Strauss’s The Life
of Jesus (1846), যা “Rosehill Circle” এর এক মেম্বারের অসমাপ্ত কাজ ছিল । পরে তিনি Feuerbach’s The Essence of Christianity (1854) এর অনুবাদের কাজ করেন । বন্ধুত্বের কারনে ,Bray ইভানের কিছু লেখা যেমন রিভিউ , Coventry Herald and  Observer  নিউজপেপারে পাবলিশ করেন ।

যখন তাঁর ধর্ম নিয়ে প্রশ্ন উঠা শুরু হয় , তাঁর বাবা তাঁকে ঘর থেকে বের করে দেব। কিন্তু সে চার্জে ভরক্তিপুর্নভাবে উপস্থিত থাকতএন , বাবার মৃত্যুর আগ পর্যন্ত ঘরে থাকতেন । যখন তাঁর বয়স ৩০ , তাঁর বাবা মারা যান । অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ার পাঁচ দিন পর , তিনি Brays দের সাথে সুইজারল্যান্ডে চলে যান । তিনি সিদ্ধান্ত নেন , জেনেভাতে একা থাকবেন বলে সিদ্ধন্ত নেন । Plongeon এর এক লেকের পাড়ে থাকতেন , পরে , rue de Chanoines তে তাঁর বন্ধু François এবং
Juliet d’Albert Durade দের বাড়িতে থাকতেন । তিনি এই বিষয়ে খুশি মনে মনব্য করেছিলেন,” যে কেউ মনে করবে , পুরনো গাছের ডালে পাখির নরম বাসায় থাকছে । ” সেই জায়াগায় এখনো তাঁর নামে স্মৃতিফলক আছে । সেখানে তিনি ভীষণ পড়তেন , আর লম্বা পদব্রজে যেতে যেতে সুইসের চারপাশের সবুজ নয়নাভিরাম দৃশ্যগুলো উপভোগ করতেন । François Durade আঁকা তাঁর ছবি সেখানে আছে ।

Move to London and editorship of the Westminster Review

পরবর্তী বছর তিনি (১৮৫০) সালে তিনি লন্ডনে চলে আসে , মনস্থির করেন তিনি লেখক হবেন । সেখানে তিনি নিজেকে Marian Evans নামে পরিচিত হন ।তিনি John Chapman এর বাড়িতে থাকতেন । তখনকার সময়ে খ্যাতনামা প্রকাশক ছিলেন তিনি । Rosehill তে এভানের সাথে সাক্ষাৎ হয়েছিল এবং Strauss অনুবাদ তিনি প্রকাশ করেছিলেন । চ্যাপম্যান সম্পতি বামপন্থী জার্নাল The Westminster Review,কিনেছিলেন , ইভান সেখানে ১৮৫১ সালে সহকারী
এডিটর হিসেবে কাজ শুরু করেন । যদি চ্যাপম্যানের অফিসিয়ালি এডিটর ছিল , কিন্তু জার্নালের সব কিছু ইভান করতেন , ১৮৫২ তেকে ১৮৫৪ সালের মধ্যবর্তী সময় পর্যন্ত তিনি সেখানে ছিলেন , অনেক রচনা , রিভিউও লিখেছিলেন ।

তখনকার সময়ে মহিলা লেখক অনেক ছিলেন , কিন্তু সাহিত্যিক ম্যাগাজিনের এডিটর হিসেবে এভান এর রোল তখন দেখা যায় নি । তিনি নিজেকে সুন্দরি বা আকর্ষণীয়া মনে করতেন না । Henry James এর মতে ,

” তাঁর কপাল ছোট ছিল , চোখ শুষ্ক ধূসর বর্ণের , খাড়া নাক , লম্বা গাল , দাঁতগুলো অমসৃণ । এই কুৎসিত চেহারার মধ্যে এক অদ্ভুত সৌন্দর্য বাস করতো , যা কয়েক মিনিটের মধ্যে কারোর মন চুরি হয়ে যেতো , মনে এক ধরনের আনন্দ অনুভব হবে । তখন তুমি সেখানেই কাবু হয়ে যাবে , যেমনটা আমি হয়েছি , তার প্রেমে পরে । হ্যাঁ , সেই ঘোড়াকার পাণ্ডিত্যভানী মুখ দিয়ে আমার দিকে তাকিয়ে দেখো । ”

সেই সময়ে তিনি কিছু বিব্রতাবস্থা তৈরি করেন , Chapman এবং Herbert Spencer এর সাথে অপ্রচলিত প্রথার বাইরে কিছু মানসিক আদান প্রদান ঘটে । Chapman বিবাহিত ছিলেন , কিন্তু স্ত্রী এবং প্রেমিকার সাথে থাকতেন ।

Relationship with George Lewes

দার্শনিক এবং সমালোচক George Henry Lewes ইভানের সাথে ১৮৫১ সালে সাক্ষাৎ ঘটে , ১৮৫৪ সালে তারা সিদ্ধান্ত নেয় , তারা একসাথে থাকবে । Lewes এর সাথে Agnes Jervis এর আগে বিয়ে হয়েছিল । তাদের ওপেন ম্যারেজ ছিল । তাদের তিন সন্তান ছিল । এছাড়াও Thornton Leigh Hunt এর সাথে অগ্নির চার সন্তান ছিল । কারণ , লিউস তাদেরকে নিজের সন্তানের পিতা হিসেবে পরিচিত দিয়েছিলেন । কারণ তাঁর উপর ব্যাভিচারের আরোপ আনা হয়েছিলো । সেই জন্য তাঁকে আইনসম্মত ভাবে ডিভোর্স দিতে পারেন নি । ১৮৫৪ সালে লিউস এবং ইভান রিসার্চের কাজে Weimar এবং Berlin এ যান । জার্মানি যাবার আগে ,
Feuerbach’s The Essence of Christianity, অনুবাদের কাজ করছিলেন । যখন তিনি বাইরে ছিলেম । তিনি রচনা লিখতেন , Baruch Spinoza’s Ethics এর অনুবাদ করতেন , তা তিনি ১৮৫৬ সালে শেষ করেন । কিন্তু তাঁর জীবিত থাকা কালে সেটি প্রকাশিত হন নি ।

জার্মানি যাবার ভ্রমণটা তাদের জন্য হানিমুন ছিল , কারণ , তারা এখন বিবাহিত । ইভান নিজেকে Mary Ann Evans Lewes হিসেবে পরিচিতি দেন । পুরুষ , নারীর মধ্যে সম্পর্ক থাকা ভিক্টোরিয়ান সমাজে অস্বাভাবিক কিছু না । Charles Bray, John Chapman, Friedrich Engels, এর Wilkie Collins এর দের বহির্গত সম্পর্ক ছিল । কিন্তু এই ক্ষেত্রে Lewes and Evans এর চেয়ে তারা বিচক্ষন ছিল । তাদের বিচক্ষনতার অভাবে ,সমাজের মানুষ তাদের সম্পর্ককে বহুগামিতার পরিচয় দেন , এবং ইংরেজ সমাজে তাদের সম্পর্ক অস্বীকৃত হয় ।

First publication

Westminster Review এর কাজ যখন চলছিল , তখন ইভান প্রতিজ্ঞা করেন তিনি ঔপন্যাসিক হবেন । তাঁর শেষ রচনায় তিনি ম্যানিফেস্টো তৈরি করেন , Review, “Silly Novels by Lady Novelists” । তাঁর রচনা তুচ্ছ এবং হাস্যকর প্লটের জন্য সমালোচিত হয়েছিল । আরেক রচনায় , বাস্তবতার উপর নির্ভর করে উপন্যাসের প্রশংসা করেন । পরবর্তী লেখাগুলোতে এরই ছাপ পাওয়া যায় । তিনি তখন ছদ্মনাম ব্যবহার করতেন , নাম George Eliot। অনেকে মনে করেন George Lewes এর উপর শ্রদ্ধা রেখে তার এই নাম রাখা ।

১৮৫৭ সালে যখন তাঁর বয়স ৩৭ , The Sad Fortunes of the Reverend Amos Barton”, Blackwood’s Magazine এ পাবলিশ হয় ।এর সাথে আরও অনেক পর্ব নিয়ে এই বই সবাই সাদরে গ্রহণ করেন । ১৮৫৯ সালে তাঁর প্রথম নভেল Adam Bede প্রকাশিত হয় । এটি তাত্ক্ষণিক সাফল্য লাভ করেন । কিন্তু নতুন উপন্যাস লিখেন তাদের জন্য এটি অনুপ্রেরণার উৎস হিসেবে কাজ করে। এই উপন্যাস জনপ্রিয় হবার পরে অনেক জল্পনা কল্পনা সৃষ্টি হয় ।
অনেকে এর কৃতিত্ব নেয়াব্র চেষ্টা করে । Joseph Liggins তাদের মধ্যে একজন / অবশেষে George Eliot সবার সামনে বেরিয়ে আসলো । সবাই জানলো Marian Evans Lewes আসল লেখক । এলিটের ব্যক্তিগত জীবন যখন ফাঁস হয়ে গেলো অনেক পাঠক আঘাত পান । কিন্তু ঔপন্যাসিক হিসেবে তাঁর সুনামে কোন ব্যাঘাত ঘটে নি । লিউসের সাথে এলিটের সম্পর্ক তাঁকে জীবনে উৎসাহ এবং স্থায়িত্ব দিয়েছিল , যা ফিকসন লেখার জন্য খুব দরকার ছিল । কিন্তু এটি ভদ্র সমাজের গৃহীত হবার পরে এই ঘটনা ঘটতে পাড়ে । ১৮৭৭ সালে তারা সমাজে অনুমোদন পায় , যখন তারা কুইন ভিক্টোরিয়ার কন্যা Princess Louise এর সাথে পরিচিত হন । রানী নিজেও George Eliot এর উপন্যাস প্রচুর পড়তেন , এবং Adam Bede এর উপন্যাস পরে এতই খুশি হয়েছিলেন যে Edward Henry Corbould কে বই থেকে ছবি আকার জন্য নিযুক্ত করেন ।

Adam Bede এর সফলতার পর , Eliot পরবর্তী ১৫ বছর ধরে অনেক জনপ্রিয় নভেল লেখেন । Adam Bede এর পর তিনি The Mill on the Floss, শেষ করেন । সেই লেখাটি তিনি উৎসর্গে লেখেন “To my beloved husband, George Henry Lewes, I give this MS. of my third book, written in the sixth year of our life together, at Holly Lodge, South
Field, Wandsworth, and finished 21 March 1860.” ।

তাঁর শেষ নভেল , Daniel Deronda , ১৮৭৬ সালে প্রকাশিত হয় , তাঁর পরে তিনি এবং লুইস witleyতে যান । সেই সময়ও , Lewes এর স্বাস্থ্য ভেঙ্গে পড়ে । তাঁর দুই বছর পর , ১৮৭৮ সালের ৩০ নভেম্বর তিনি মারা যান । ইলিয়ট , তাঁর পরের দুই বছর ধরে Lewes এর শেষ কাজ , Life and Mind কে প্রকাশনা করার জন্য এডিটিং করেন । স্কটিশ কমিশন এজেন্ট John Walter Cross এর সাহচর্য্যে এসে তিনি অনেক স্বান্তনা পান । ওয়াল্টারে মা সম্প্রতি মারা গিয়েছিলেন ।

Marriage to John Cross and death

১৬ মে , ১৮৮০ সালে ইলিয়ট , John cross কে বিয়ে করে আবার বিতর্কের জন্ম দেন । John Cross তাঁর চেয়ে ২০ বছরের ছোট , আবার Eliot ন্মা পরিবর্তন করেন , এবার রাখেন Mary Anne Cross । এই বৈধ বিয়েতে অন্তত তাঁর ভাই Isaac খুশি হয়েছিলেন . যখন লুইসের সাথে তাঁর বিয়ের কথা শুনে তিনি ভেঙ্গে পড়েছিলেন । কিন্তু এখন তিনি অভিনন্দন জানিয়েছিলেন । জহকন এই দম্পতি হানিমুনে ভেনিসে যান , ক্রস কিছুটা বিষণ্নতায় ভুগেন । হোটেল এর ব্যালকনি থেকে ঝাঁপ দিয়ে Grand Canal পড়েন । তিনি বেঁচে যান । পরে তারা ইংল্যান্ডে যায় । তারা চেলসাতে নতুন ঘরে উঠেন । কিন্তু ইলিয়ট গলায় সংক্রমন অনুভব করেন । একই সাথে কিডনিতে সমস্যার হওয়ার কারনে আরও কয়েক বছর ভুগার পরে ১৮৮০ সালে ২২ ডিসেম্বর , ৬১ বছর বয়সে তিনি মারা যান ।

ইলিয়টকে Westminster Abbeyতে সমাহিত করা যায় নি , কারণ । তাঁর খ্রিস্টান বিশ্বাসে অস্বীকার এবং লুইসের সাথে নিয়মবহির্ভূত সম্পর্ক ছিল । পরে তাঁকে তাঁর প্রেমিক লুইসের পাসে Highgate Cemetery তে সমাহিত করা হয় । সেই জায়গায় অজ্ঞাত ব্যক্তিদের সমাহিত করা হয় । ১৯৮০ সালে , তাঁর মৃত্যুর শতবার্ষিকী উপলক্ষে Poets’ Corner এ তাঁর নামে স্মৃতিফলক নির্মিত করা হয় ।

তাঁর জন্মস্থান Nuneaton এর কয়েকটি বিল্ডিং তাঁর নামে বা তাঁর উপন্যাসের নামে নামকরন করা হয় । এগুলোর মধ্যে The George Eliot School (previously George Eliot Community School) , Middlemarch Junior School আছে । ১৯৪৮ সালে Nuneaton Emergency Hospital তাঁর সম্মানার্থে George Eliot নামে প্রতিষ্ঠা করা হয় । Foleshill তে এ George Eliot Road এর নামেও নামকরন করা হয় ।

Nuneaton এর Newdegate Street তে তাঁর একটি মূর্তিও বানানো হয় । Nuneaton Museum & Art Gallery তে তাঁর কাজগুলো প্রদর্শন করা হয় ।

Literary assessment

ক্যারিয়ারজুড়ে তাঁর লেখার মধ্যে , ইলিয়ট রাজনৈতিকভাবে দক্ষতার পরিচয় ঘটেছে , Adam Bede থেকে The Mill on the Floss এবং Silas Marner এর মাধ্যমে সমাজের বাইরের বৈষম্যতা , ধনীদের নিপীড়ন ফুটিয়ে তুলেছেন । Felix Holt, the Radical এবং The Legend of Jubal স্পষ্টত রাজনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গি থেকে রচনা করা । Middlemarch এ মুল প্লট ছিল রাজনৈতিক । মনস্তাত্ত্বিক অন্তর্দৃষ্টি এবং বাস্তবধর্মী চরিত্রের কারনে এই নভেল অনেক বিখ্যাত । তাঁর এই বাস্তব দর্শন John Ruskin’s Modern Painters in Westminster Review in 1856 এ পাওয়া যাবে ।

পাঠকরা ভিক্টোরিয়ান যুগে তাঁর বইগুলো অনেক প্রশংসিত হয়েছিল , আগের অভিজ্ঞতা থেকে সেখানে গ্রামীণ সমাজের বর্ণনা তুলে ধরেছেন । তিনি wordsworth এর সাথে এক ধারণা শেয়ার করেন , সেখানে গ্রামিন সাধারণ সমাজের গুরত্বকে প্রাধান্য দিয়েছেন । ইলিয়ট না করলেও , তিনি নিজেকে bucolic শিকড়ের মধ্যে নিজেকে আটকে রেখেছেন । Romola , Florence , Girolamo Savonarola এর প্রতি তাঁর আগ্রহ ছিল । The Spanish Gypsy তে , ইলিয়ট পঙক্তির মাধ্যমে লিখেছেন , যা জনপ্রিয়তা এখনো কমে নি ।

অনুবাদ করার সময় , ইলিয়ট জার্মানি ধর্ম ,সাহিত্য , নীতিশাস্ত্রের দিকে ঝুঁকেন , যেমন , Friedrich Strauss’s Life of Jesus, Feuerbach’s The Essence of Christianity, এবং Spinoza’s Ethics. Elements যা তাঁর ফিকশন লেখার মধ্যেও তাঁর ছাপ পরে । এই সব লেখার অজ্ঞেয়বাদের নীতি প্রকাশ পায় । তিনি খ্রিষ্টধর্মের Feuerbach এর ধারণার উপর অনেকটা প্রভাবান্বিত হয়েছিলেন । এই তত্ব অনুযায়ী , বিশ্বাস হচ্ছে , প্রাকৃতিক ঐশ্বরিক বোধশক্তি যা মানুবধর্মের মাধ্যমে স্থাপিত করা হয়েছিল যা মানুষকে ঐশ্বরিক করে তুলে । উদাহরনস্বরুপ , তাঁর Romola এর উপন্যাসের কথা শেসে যাবে । সেখানে তিনি বলেছেন , “আশ্চর্যজনভাবে এই আধুনিক ধর্মীয় ভাষাকে মানবতাবাদী বা ধর্মনিরপেক্ষভাবে উপস্থাপন করতে চায় । যদিও ইলিয়ট নিজেই ধর্ম মানতেন না , কিন্তু তিনি ধর্মীয় আচার আচরঙ্কে শ্রদ্ধা করতেন , এর কারনে সমাজে ভারসাম্য , নৈতিকতা রক্ষা হয় । ” ইলিয়ট ধর্মের নিয়ে ভালোই জ্ঞান ছিল , আবার অনেক সমালোচকও ছিলেন ।

এই ধর্মীয় ব্যাপারগুলো তাঁর লেখার মধ্যে ফুটিয়ে তুলেছেন যা তিনি ছোট বয়সে তাঁকে অনেক অবাক করে তুলতো। The Mill on the Floss থেকে Maggie Tulliver এর সাথে যুবতী Mary Ann Evans জীবনের সাথে অনেক মিল রয়েছে । যখন Silas Marner চার্জ থেকে বাতিল ঘোষণা করা হয় , তাখন তাঁর অর্থ সমাজের সাথে তাঁর সম্পর্কের বিচ্ছিন্নতার প্রকাশ। এই লেখক আবার চার্জে যেতে অস্বীকৃতি জানান । তাঁর জীবনী নিয়ে লেখা বইয়ের নাম Looking Backwards । Impressions of Theophrastus Such তাঁর কিছু প্রিন্টের অংশ। একই সময়ে ইলিয়টের Daniel Deronda এরবিক্রি বন্ধ হয়ে যায় ,তিনি কিছু সময়ের জন্য সমাজ থেকে দূরে থাকেন । এই আত্মজীবনী তাঁর মৃত্যুর পরে স্বামী দ্বারা লিখিত না , সেখানে এক চমৎকার প্রায় শুদ্ধচরিত্রের এক নারী কিভাবে কষ্ট , জল্পনা কল্পনার, কুৎসিত রটনার মধ্যে দিয়ে জীবন পার করেছেন তা ফুটে উঠেছে । বিংশ শতাব্দীতে তিনি আরেক ইংরেজ নভেল্ লেখক Virginia Woolf দ্বারা সমালোচিত হন । ১৯৯৪ সালে সাহিত্য সমালোচক ইলিয়টকে গ্রুত্বপুর্ন পাশ্চাত্যের লেখক হিসেবে উল্লেখ করেন । ২০০৭ সালে টাইম এর পোলে শ্রেষ্ঠ সাহিত্যিক কর্মের তালিকায় ১০ম স্থানে থাকেন । তাঁকে নতুন করে সবার কাছে তুলে ধরার জন্য ইলিয়টের বই থেকে অনেক ছবি বানানো হয়েছে ।

 

source: https://en.wikipedia.org/wiki/George_Eliot

জর্জ এলিয়ট | George Eliot wiki in Bangla