Fiction : Cat in the Rain 
                     By : Ernest Hemingway

 

দুইজন অ্যামেরিকান একটি হোটেলে এসে দাঁড়ালো । সিঁড়ি দিয়ে তাদের চলার পথে সব মানুষগুলো অচেনা । তাদের রুম ছিলো দ্বিতীয়তলায় , সমুদ্রের দিকে মুখ করা । পাবলিক গার্ডেন এবং যুদ্ধের ভাস্কর্য দেখা যায় সেই রুম থেকে । পাবলিক গার্ডেনে বড় বড় পাম গাছ , এবং সবুজ রঙের বেঞ্চ রয়েছে ।

ভালো আবহাওয়ার সময় সেখানে চিত্রফলক দিয়ে শিল্পীরা ছবি আগে । পাম গাছ যে রাস্তা ধরে হোটেল এবং সমুদ্রের সাথে মিশে গেছে তা শিল্পীদের কাছে অনেক পছন্দের জায়গা ।

যুদ্ধের ভাস্কর্যগুলো দেখার জন্য ইতালিয়ানরা অনেকদূর থেকে ছুটে আসে । এটি ব্রোঞ্জের তৈরি , বৃষ্টির সময় ঝলমল করে এটি । বৃষ্টি হচ্ছে । পাম গাছ থেকে টুপটুপ করে বৃষ্টি গড়িয়ে গড়িয়ে পড়ছে । পানি নড়ি পাথরের রাস্তা দিয়ে বেয়ে পুলে পড়ছে । অন্যদিকে সমুদ্রের ঢেউ তীরে আঁচড়ে পড়ছে । মোটরকারগুলো ভাস্কর্যের চত্ত্বর থেকে সরে গিয়েছিলো । এইখানে একটি ক্যাফে আছে । ক্যাফের ওয়েটার প্রবেশপথে দাঁড়িয়ে স্কয়ারের দিকে তাকিয়ে আছে ।

অ্যামেরিকান স্ত্রী জানালা দিয়ে বাইরে তাকিয়ে আছে । বাম দিকের জানালার বাইরের এক টেবিলে বৃষ্টির পানি টপটপ করে পড়ছে । সেই টেবিলের নিচে এক বিড়াল জুবুথুবু করে বসে আছে , যাতে বৃষ্টির ফোঁটা তাঁর গাঁয়ে না লাগে ।

“আমি যাচ্ছি , বিড়ালের ছানাটাকে দেখো ” অ্যামেরিকান স্ত্রী বললো ।
“আমি তা করবো ” তাঁর স্ত্রী বিছানা থেকে বললো ।
“না, আমি তাকে নিবো । বিড়ালের ছানাটাভিজে যাচ্ছে । ”

পায়ের নিচে বালিশ দিয়ে শুয়ে শুয়ে স্বামী বই পড়ছিলো ।

“ভিজো না ” সে বললো ।

স্ত্রী সিঁড়ি দিয়ে নিচে নামলো । যখন অফিস সামনে দিয়ে যাচ্ছিলো , হোটেলের মালিক দাঁড়িয়ে তাকে অভিবাদন জানিয়েছে । তাঁর ডেস্ক অফিসের শেষ মাথায় । মালিক দেখতে লম্বা , বৃদ্ধ ।

” বৃষ্টি হচ্ছে ” স্ত্রী বললো । সে হোটেলমালিককে ভাল লাগে ।
“হ্যাঁ , অনেক খারাপ আবহাওয়া ”

মালিক ডেস্কের পিছনে দাঁড়িয়ে ছিলো , রুমে হাল্কা আলো । স্ত্রী তাকে পছন্দ করে । সে সিরিয়াসভাবে সব ধরনের অভিযোগ গ্রহণ করে । তা দ্রুত সমাধানের চেষ্টা করে । অনেক আন্তরিক কাজের প্রতি । স্ত্রী বৃদ্ধের ভারী মুখ এবং বড় হাত তাঁর পছন্দ ।

তাকে দেখতে দেখতে দরজা খুলে বাইরের দিকে তাকালেন । অনেক জোরে বৃষ্টি হচ্ছে । একজন ক্যাফের রাস্তা পার হচ্ছে । মাথায় তাঁর রাবার ক্যাপ । আসার পথে বিড়ালটি হয়তো তার বাম দিকে পরবে । বোধ হয় , ছাদের নিচ দিয়ে সোজা কোথাও যাবে । দরজা সামনে এসে মহিলাটির পিছনে ছাতা মেলে ধরলো । এই মহিলাটি তাদের রুমের দেখাশুনা করে ।

“তুমি তো ভিজে যাবে । ” মহিলাটি ইটালিয়ান । অবশ্যই হোটেল মালিক তাকে পাঠিয়েছে ।

মহিলাটি তার মাথার উপর ছাতা ধরে , নুড়ি পাথরের রাস্তার উপর দিয়ে চলতে থাকলো । তাদের জানালার সামনে এসে থেমে গেল । টেবিলটি সেখানেই ছিল ।বৃষ্টির পানি পরে , টেবিলটি আরও উজ্জল সাদা হয়ে উঠলো । কিন্তু বিড়ালটা চলে গিয়েছে । হঠাৎ তা দেখে কিছুটা হতাশ হয়ে পড়লো । গৃহকর্মী তাকে দেখলো ।

“আপনি কি কিছু খুঁজছেন , মিসেস ? ”

“সেখানে একটি বিড়াল ছিল ” অ্যামেরিকান মহিলাটি বললো ।

“বিড়াল ?”

“হ্যাঁ , বিড়াল । ”

“বিড়াল ?” গৃহকর্মীটা হেসে দিলো । “এই বৃষ্টিতে বিড়াল ? ”

” হ্যাঁ – ” সে বললো । ” টেবিলের নিচে ছিলো । ” তারপর , আহ , আমার এইটা চাই । আমি বিড়ালের ছানা চাই ।

যখন সে ইংলিশে কথাটুকু বলছিলো , গৃহকর্মীর চেহারাটা কিছুটা শুকিয়ে গেলো ।

“চলে আসুন ” সে বললো । “আমাদের ভিতরে যাওয়া উচিত । আপনি ভিজে যাবেন ”

“আমারও তা মনে হয় । ” অ্যামেরিকান মেয়েটা বললো ।

সেই নুড়ি পাথরের রাস্তা বেয়ে তারা দরজার কাছে আসলো । গৃহকর্মী ছাতা বন্ধ করার জন্য বাইরে দাঁড়ালেন । যখন অ্যামেরিকান মহিলাটি অফিসের পাশ দিয়ে যাচ্ছিলো , মালিক মাথা নত করলেন । মেয়েটাকে দেখে মনে হলো ছোটখাট কোন কারনে কষ্ট পেয়েছে । তার মুখ গোমড়া মালিকের মনটাও খারাপ হয়ে গেলো । একই সময়ে এটিকে সে গুরুত্বপূর্ণ মনে করলো । ক্ষণস্থায়ী হলেও মেয়েটির কাছে এটির গুরত্ব অনেক ছিল । সে সিঁড়ি দিয়ে উঠে তার রুমের দরজা খুললো ।

জর্জ বিছানায় বই পড়ছে ।

“তুমি কি বিড়ালটাকে দেখেছো ? ” বই নামিয়ে সে জিজ্ঞেস করলো

“চলে গেছে ”

“আশ্চর্য , কোথায় গেলো ?” বই পড়তে পড়তে সে জিজ্ঞেস করলো ।

মেয়েটি বিছানায় বসে পড়লো ।

“আমার এটি চাই ” সে বললো । “জানি না আমি কেন চাই । তাকে দেখে কষ্ট লাগছিলো । বৃষ্টির মধ্যে একটি বিড়াল ভিজেছে , এটি নিশ্চয় মজার কোন কথা নয় । ”

জর্জ আবার পড়া শুরু করলো ।

মেয়েটি ড্রেসিং টেবিলের কাছে দাঁড়িয়ে হ্যান্ডগ্লাসের আয়না দিয়ে তাকে দেখছে । মুখের এক পাশ , আরেক পাশ করে ভালোভাবে তার চেহেরা দেখছে । তারপর কপাল ,ঘাড় দেখছে ,

“তোমার কি মনে হয় , যদি আমি আমার চুল বাড়াতে দেই ?”

জর্জের খুব একটা মন নেই সেই কথায় । তারপরও মনে রাখতে তার পিছনে ঘাড়ের দিকে তাকালো ।

“যেমনে আছে তেমনে ভাল লাগছে । ”

“আমার ভাল লাগছে না ” মেয়েটি বললো । “কেমন জানি ছেলে ছেলে লাগে । ”

জর্জ তার জায়গায় একটু নড়েচড়ে বসলো । কথা শুরু হবার পর থেকে এখন পর্যন্ত সে তার দিকে তাকায় নি ।

“তোমাকে অনেক সুন্দর লাগছে ” সে বললো ।

মেয়েটি আয়না রেখে জানালা দিয়ে বাইরে তাকালো । আস্তে আস্তে অন্ধকার হচ্ছে ।

” চিন্তা করছি , আমি সোজা লম্বা চুল করবো , তারপর একটা খোপা করবো । ” সে বললো । “আমি একটা বিড়াল ছানা চাই সে আমার কোলে থাকবে। আর যখন গুতাবো , তখন গড়গড় আওয়াজ করবে । ”

“তাই ?? ” জর্জ বিছানা থেকে বললো ।

“আর আমি টেবিলে রুপোর থালায় খেতে চাই , একটা মোমবাতি দরকার । আমি এইগুলো এই বসন্তে চাই । আমি আয়নার সামনে সারিয়ে চুল আঁচড়াতে চাই । আমি একটা বিড়াল ছানা আর কিছু নতুন কাপড় চাই । ”

“আহ , চুপ থাকো । আমি কিছু পড়ছি । ” জর্জ তা বলে , আবার পড়া শুরু করলো ।

তার স্ত্রী জানলা দিয়ে বাইরে তাকিয়ে আছে । এখনো অন্ধকার , পাম গাছে এখনো বৃষ্টি হচ্ছে ।

“যে ভাবেই হোক , আমার একটা বিড়াল চাই । ” সে বললো । “আমি বিড়াল চাই । আমার বিড়াল এখনই দরকার । আমার যদি বড় চুল না করতে পারি বা কোন মজা না হয় , তাহলে আমি বিড়াল তো রাখতেই পারি ”

জর্জ সেদিকে কোন খেয়াল নেই। সে বই পড়ছে । তার স্ত্রী বাইরের দিকে তাকিয়ে ছিল , ঠিক সেই সময় স্কয়ারে একটা লাইটের আলো দেখা গেলো ।

কেউ একজন দরজা নক করছে ।

“আসছি ” জর্জ বই থেকে চোখ তুলে বললো ।

দরজার সামনে গৃহকর্মী দাঁড়িয়ে আছে । তার হাতে এক খাঁচা ।সেই খাঁচার মধ্যে এক বিড়াল /

“এক্সকিউজ মি । ” সে বললো । “মালিক মিসেসকে এটি দিতে বলেছে । ”

 

 

source link :  Cat in the Rain

আরও গল্প পড়তে ক্লিক করুনঃ

Games at Twilight by Anita Desai

প্রথম স্কুলে যাবার দিনঃ ছোট গল্প

The Garden Party by KATHERINE MANSFIELD

Araby by James Joyce 

The Ant and The Grasshopper

I Have A Dream -Martin Luther King 

Tagor-Letter to Lord Chelmsford Rejecting Knighthood 

Abraham Lincoln-Gettysburg Address

Of Studies by Francis Bacon

Shooting an Elephant  

The Most Dangerous Game

A Double-Dyed Deceiver 

HEARTACHE

The Luncheon

The Gift of Magi

A MOTHER IN MANNVILLE

Cat in the Rain by Ernest Hemingway : Bangla Translation